শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে নতুন ফেরির উদ্বোধন

  মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি

১২ জানুয়ারি ২০১৭, ১৪:৫৪ | আপডেট : ১২ জানুয়ারি ২০১৭, ১৫:০১ | অনলাইন সংস্করণ

দক্ষিণাঞ্চলবাসীর যাতায়াতের সুবিধার্থে শিমুলিয়া কাওড়াকান্দি নৌরুটে বিআইডব্লিউটিসি পুনর্বাসিত ফেরি কুমিল্লার উদ্বোধন করা হয়েছে। আজ বৃহসপতিবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ জেলার শিমুলিয়া ঘাটে বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃক আয়োজিত অনুষ্ঠানে নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ফেরীটির শুভ উদ্বোধন করেন।

বিআইডব্লিউটিসি পুনর্বাসিত ফেরি কুমিল্লার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে নৌমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর নৌ পরিবহন সেক্টরের উন্নয়নে ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণ করে। যার আওতায় বিআইডব্লিউটিসি পরিচালিত বিভিন্ন সেবার মান উন্নয়নে ২০০৯ সাল হতে এ পর্যন্ত ৪৫টি নতুন জলযান নির্মাণ ও সংগ্রহ করা হয়েছে। যার মধ্যে ১৭টি ফেরি, ১২ ওয়াটার বাস, ২ অভ্যন্তরীণ যাত্রীবাহী জাহাজ, ৪ সী-ট্রাক এবং ১০টি পন্টুন রয়েছে।

তিনি বলেন, বর্তমানে ৪টি কন্টেইনারবাহী জাহাজ, ২টি উন্নতমানের কে-টাইপ ফেরি,২টি মিনি ইউটিলিটি ফেরি,২টি অভ্যন্তরীণ জাহাজ ও ২টি উপকূলীয় যাত্রীবাহী জাহাজসহ ১২টি নতুন জলযান নির্মাণের কাজ চলমান আছে। প্যাসেঞ্জার ক্রুজার, আধুনিক যাত্রীবাহী জাহাজ,অয়েল ট্যাংকার,ফায়ার-ফাইটিং কাম-স্যালভেজ টাগসহ বিভিন্ন ধরণের আরও ৩৬টি জলযান নির্মাণের প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।

শাজাহান খান আরও বলেন, অধিক সংখ্যক জলযান সার্ভিসে নিয়োজিত করার ফলে ঢাকা-বরিশাল রুটে আধুনিক জাহাজের মাধ্যমে যাত্রী সেবা প্রদানসহ বিভিন্ন ফেরি ঘাটে ক্রমবর্ধিত যানবাহনের চাপ মোকাবেলা করা সম্ভব হচ্ছে। ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ফেরি সার্ভিসে ২৫.৯৯ লক্ষ যানবাহন পারাপার করা হয়েছে। যা পূর্ববর্তী অর্থবছর (২০১৪-১৫) হতে ১২.৩৬% বেশি।

নৌমন্ত্রী বলেন, নতুন জলযান নির্মাণের পাশাপাশি ৫৩.২২ কোটি টাকায় ৪টি রো রো ফেরি, ২টি কে-টাইপ ফেরি ও ৬টি পন্টুন পুনর্বাসন করা হয়েছে। ৮.৪০ কোটি টাকা প্রকল্প ব্যয়ে ২টি পুরাতন মিডিয়াম ফেরি ‘কুমিল্লা’ ও ‘ঢাকা’ পুনর্বাসন প্রকল্পটি বাস্তবায়নের শেষ পর্যায়ে রয়েছে। ৪.০০ কোটি টাকায় ফেরি ‘কুমিল্লা’ পুনর্বাসনের কাজ সন্তোষজনকভাবে সম্পন্ন করা হয়েছে।
 
বিআইডব্লিউটিসি’র চেয়ারম্যান জ্ঞান রঞ্জন শীলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমোডর এম. মোজাম্মেল হক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব)ফজলে আজীম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোসতাফিজুর রহমান, উপজেলা চেয়ারম্যান ওসমান গনি তালুকদার প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ফেরি ‘কুমিল্লা’ পুনর্বাসনে চার কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। এর ফলে ডেকের জায়গা ও উচ্চতা বৃদ্ধি পাওযায় গাড়ির ধারন ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং এতে বড় বাস ও ট্রাক সহজে লোড করা যাবে। ভিআইপি যাত্রী পারাপারসহ ফেরিটি দ্বারা অধিক সংখ্যক রাউন্ড ট্রিপ প্রদান করা সম্ভব হবে এবং সংস্থার রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
close
close