জবি শিক্ষকের পদাবোনতি

  জবি প্রতিনিধি

৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১২:৩৯ | অনলাইন সংস্করণ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) প্রশাসনের অনুমতি ছাড়াই বিদেশ গমন ও অবস্থানের অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় এক শিক্ষককে সহকারী অধ্যাপক থেকে প্রভাষক পদে পদাবোনতি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। গত ২৪  আগস্ট  বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭৫ তম সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। তবে এতদিন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সংবাদটি গোপন রাখে।

এদিকে বিষয়টি কেন এতদিন গোপন রাখা হল এ প্রশ্নের জবাব প্রশাসনের কেউ দিতে রাজি হননি।

বিশ্ববিদ্যালয় সুত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আসমাত আরা ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিনা অনুমতিতে দীর্ঘদিন ধরে বিদেশে অবস্থান করছিলেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে তার কর্মস্থলে দীর্ঘদিন অনুপস্থিত এবং যোগাযোগ না করায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাকে দুইবার কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়। কিন্তু কারণ দর্শানোর নোটিশে এ শিক্ষক কোন সদুত্তর দিতে না পারলে তার এ অভিযোগের বিরুদ্ধে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭৫ তম সিন্ডিকেট সভায় তদন্ত কমিটির রিপোর্ট ও শিক্ষকের কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব পর্যালোচনা করা হয়।

সিন্ডিকেট সভায় এ শিক্ষকের বিরুদ্ধে অসদাচারণ ও কর্তব্য পালনে অবহেলার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সিন্ডিকেট এ শিক্ষকের বিরুদ্ধে পদাবোনতির সিদ্ধান্ত গ্রহন করে। গত ২৪ সেপ্টেম্বর সিন্ডিকেট সভার এ সিদ্ধান্ত অভিযুক্ত শিক্ষককে জানানো হয়।

সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্তে বলা হয়, অভিযুক্ত আসমাত আরা ইসলামকে সহকারী অধ্যাপক থেকে প্রভাষক করা হয়েছে। তবে তিনি পে-প্রোটেকশন পাবেন। এছাড়া তিনি পরবর্তী এক বছর পদন্নতি পাবেন না এবং পদন্নতির জন্য আবেদনও করতে পারবেন না।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্টার প্রকৌশলী মো. ওহিদুজ্জাান বলেন, অসদাচারণ ও কর্তব্য পালনে অবহেলার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় দর্শন বিভাগের এক শিক্ষকের পদাবোনতি করা হয়েছে। সর্বশেষ ৭৫ তম সিন্ডিকেট সভা তার বিরুদ্ধে অভিযোগ পর্যালোচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে