ট্রাম্পের উত্তেজক বক্তব্যে আলোচনা ভেস্তে যেতে পারে

  অনলাইন ডেস্ক

২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১২:১৯ | অনলাইন সংস্করণ

উত্তর কোরিয়াকে নিয়ে জাতিসংঘে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উত্তেজনাপূর্ণ বক্তব্যে এক ধরনের উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে বলে মনে করছেন আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। তারা বলছেন, উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা ডোনাল্ড ট্রাম্পের আগ্রাসী মনোভাবের কারণে ভণ্ডল হয়ে যেতে পারে। খবর বিবিসির।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জাতিসংঘে নিজের প্রথম ভাষণে বলেছেন, পারমাণবিক অস্ত্রের হুমকি দেওয়া বন্ধ না করলে বাধ্য হয়ে উত্তর কোরিয়াকে ‘পুরোপুরি ধ্বংস’ করে দিতে যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তুত। মঙ্গলবারের এ ভাষণে ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উনকেও ব্যঙ্গ করে আত্মঘাতী মিশনে নামা ‘রকেট মানব’ আখ্যা দেন।

উত্তর কোরিয়া জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে একের পর এক পারমাণবিক বোমা এবং ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়ে আসছে।

ট্রাম্প বলেন,  এ থেকে সরে না আসলে উত্তর কোরিয়াকে সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দেওয়া ছাড়া আমাদের আর কোনও উপায় থাকবে না। রকেট মানব নিজেকে ও তার রাজ্যকে শেষ করার আত্মঘাতী মিশনে নেমেছেন।

তিনি আরও বলেন, যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের কিংবা তার মিত্রদেশগুলোর প্রতিরক্ষায় বাধ্য হলে উত্তর কোরিয়াকে সম্পূর্ণ ধ্বংস করা ছাড়া উপায় থাকবে না।

উত্তর কোরিয়া ‘উস্কানিমূলক কর্মকান্ড’ বন্ধ না করা পর্যন্ত কিম সরকারকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলতে একযোগে কাজ করে যাওয়ার জন্য জাতিসংঘের সদস্যদেশগুলোকে আহ্বানও জানান ট্রাম্প।

ট্রাম্পের এ ভাষণের পর উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি।

ট্রাম্পের ভাষণের সময় উত্তর কোরিয়ার একজন জুনিয়র কূটনীতিক সেখানে উপস্থিত ছিলেন বলে জানায় রয়টার্স।

ট্রাম্প বলেন, পরমাণু অস্ত্র ও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে উত্তর কোরিয়ার উন্মাদনা পুরো বিশ্বের জন্য হুমকি এবং মানবজাতির জন্য অকল্পনীয় ক্ষতি। উত্তর কোরিয়ার সবচেয়ে বড় বাণিজ্য অংশীদার চীনকে ইঙ্গিত করে ট্রাম্প আরও বলেন, প্রচণ্ড রাগ লাগে যখন দেখি কয়েকটি দেশ শুধু এ ধরনের একটি সম্রাজ্যের সঙ্গে বাণিজ্যই করে না বরং তাদের অস্ত্র, রসদ, অর্থনৈতিক সমর্থন দেয়।

পরমাণু অস্ত্র প্রকল্প নিয়ে উত্তর কোরিয়ার ওপর চাপ বাড়াতে জাতিসংঘের সদস্যভূক্ত দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান ট্রাম্প।

ট্রাম্পের এসব উত্তেজক বক্তব্যে উত্তর কোরিয়ার পরমাণু কর্মসূচি বন্ধে যে আলোচনা চলছে সেটি ভেস্তে যেতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। উত্তর কোরিয়ার সাংবাদিক ডোনাল্ড কির্ক বলেন, আমি ধারনা করেছিলাম ট্রাম্প জোরালো বক্তব্য দিবেন, কিন্তু তিনি যে এতটা উত্তেজক বক্তব্য বক্তব্য দিবেন তা কল্পনাও করতে পারিনি। তার এ বক্তব্যে আলোচনার পথ অনেকটাই রুদ্ধ হয়ে যাবে বলে দৃশ্যত মনে হচ্ছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে