কারাগারে স্যামসাং প্রধান লি জে-ইয়ং

  অনলাইন ডেস্ক

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ১৬:৪৭ | অনলাইন সংস্করণ

গ্রেপ্তার করা হয়েছে দুর্নীতি অনুসন্ধান ও প্রভাব খাটানোর তদন্তের অংশ হিসেবে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠান স্যামসাংয়ের উত্তরাধিকারী লি জে-ইয়ংকে। এএফপির খবরে জানা যায় আজ শুক্রবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি সরকারি কিছু সুবিধার বিনিময়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট পার্ক গিউন হের ঘনিষ্ঠ বন্ধু চোই সুন-সিলের অলাভজনক কোম্পানিকে ৩ কোটি ৬৩ লাখ ডলার (৪৩ বিলিয়ন উন) ঘুষ দিয়েছেন।

আজ শুক্রবার আদালতের একজন মুখপাত্র এক বিবৃতিতে বলেছেন, কেলেঙ্কারির কারণে পার্লামেন্টে পার্ককে অভিশংসনের পক্ষে ভোট পড়ে। তাই নতুন করে আনা ফৌজদারি অভিযোগ ও প্রমাণের আলোকে লি জে-ইয়ংকে গ্রেপ্তারের প্রয়োজন।

স্যামসাং গ্রুপের প্রধান লি কুন-হির ছেলে লি জে-ইয়ং। দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট পার্ক গিউন হের দুর্নীতি কেলেঙ্কারিতে জড়িত থাকার অভিযোগে তাকে বেশ কয়েকবার জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। ৪৮ বছর বয়সী লিকে এই কেলেঙ্কারির মূল হোতা হিসেবে ধারণা করা হলেও গত সপ্তাহে অপর্যাপ্ত সাক্ষ্যপ্রমাণের অভাবে তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেননি আদালত। গত মঙ্গলবার আইনজীবীরা তাঁকে গ্রেপ্তারের জন্য দ্বিতীয়বার আরজি পেশ করেন। তারা এ সময় আরও সাক্ষ্যপ্রমাণ হাজির করার কথা বলেন।

স্যামসাংয়ের প্রধানকে গ্রেপ্তারের ঘটনা এবারই প্রথম ঘটল। এ ঘটনায় পুরো প্রতিষ্ঠানের জন্য একটি ধাক্কা। দক্ষিণ কোরিয়ার অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। বর্তমান বিশ্বে বৃহত্তম স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্যামসাং ইলেকট্রনিকস। বর্তমানে স্যামসাংকে বড় ধরনের ঝামেলার মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে। ফ্ল্যাগশিপ গ্যালাক্সি নোট ৭ স্মার্টফোনে ব্যাটারি সমস্যার কারণে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ফেরত নিতে হয়েছে স্যামসাংকে।

স্যামসাংয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ, প্রতিষ্ঠানটি থেকে বড় অঙ্কের ঘুষ দেওয়া হয় অলাভজনক একটি প্রতিষ্ঠানকে, যা পরিচালনা করেন প্রেসিডেন্ট পার্ক গুন-হাইয়ের ঘনিষ্ঠ আস্থাভাজন চোই সুন-সিল। চোইয়ের ওপর বলপ্রয়োগ ও প্রতারণাচেষ্টার অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, চোই সুন-সিল সরকারের বিভিন্ন কৌশল নির্ধারণে মধ্যস্থতা করছেন এবং প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সম্পর্কের সূত্র ধরে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হয়েছেন। ২০১৫ সালে ইলেকট্রনিক জায়ান্টটির অধীনের নির্মাণ প্রতিষ্ঠান স্যামসাং সিঅ্যান্ডটি ও সহযোগী প্রতিষ্ঠান শেইল ইন্ডাস্ট্রিজের একীভূত হয়। এটি নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির বহুসংখ্যক শেয়ারধারীর ভিন্নমত থাকলেও এই একীভূত হয়। তাদের দাবি ছিল, এই চুক্তির মাধ্যমে সংখ্যালঘু শেয়ারধারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। তবে লাভবান হবে স্যামসাং গ্রুপের মালিক লি কুন-হি-এর পরিবার। দুই প্রতিষ্ঠানেই শেয়ার থাকা জাতীয় পেনশন তহবিল পরিচালনা প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল পেনশন সার্ভিস (এনপিএস) এই চুক্তির পক্ষে ভোট দেয়।

অভিযোগ রয়েছে, এই চুক্তিতে প্রেসিডেন্টের সমর্থন পাওয়ার জন্য চোই সুন-সিল ও তার মেয়েকে ৩১ লাখ ডলার ঘুষ দেয় স্যামসাং। এ বিষয় গত মাসে এক শুনানিতে স্বীকারও করে স্যামসাং কর্তৃপক্ষ। তারা জানায়, চোই সুন-সিলের মেয়ের কর্মজীবনে উন্নতির জন্য এ অর্থ দেওয়া হয়। দুর্নীতির অভিযোগে গত মাসে দেশটির পার্লামেন্টে প্রেসিডেন্ট পার্ক গুন-হাইয়ের বিরুদ্ধে অভিশংসন করার পক্ষে ভোট দেন অধিকাংশ আইনপ্রণেতা। পার্লামেন্টের এই সিদ্ধান্ত বহাল বা খারিজ করার ক্ষমতা রয়েছে সাংবিধানিক আদালতের।

প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠার পর তাঁর পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ শুরু হয়। পার্ক গুন হে ও চোই সুন-সিল জাতির কাছে ক্ষমা চাইলেও তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে