পেটের মেদ কমাতে কার্যকরী কিছু ব্যায়াম

  আয়েশা সিদ্দিকা

১৭ এপ্রিল ২০১৭, ১১:২৭ | আপডেট : ১৭ এপ্রিল ২০১৭, ১২:০৩ | অনলাইন সংস্করণ

এই পৃথিবীতে মেদজনিত জটিলতায় ভোগেননি এমন মানুষ খুব কমই আছে। সাধারণত নারী-পুরুষ নির্বিশেষে প্রত্যেকেরই সারা শরীরের তুলনায় পেটে মেদ জমে বেশি। আর একবার মেদ জমলে তা কমাতেও অনেক সময় লাগে। অনেকেই পেটের মেদ কমাতে উঠেপড়ে লেগে খাওয়া-দাওয়াই ছেড়ে দেন। এতে মেদ তো কমেই না, বরং অসুস্থ হয়ে পড়ার ঘটনা ঘটে। শুধু খাওয়া কমালেই যে মেদ কমবে এমন কোন কথা নেই। বরং মেদ কমাতে ব্যায়াম করাও কিন্তু সমান জরুরী। এমন তথ্যই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, পেটের মেদ কমাতে একবারে পেট ভরে বেশি খাবার না খেয়ে অল্প অল্প করে পাঁচ-ছয়বার খান। খাবার খাওয়ার আধা ঘণ্টা পরে পানি পান করুন। আর রাতের খাবার ঘুমানোর দুই ঘণ্টা আগেই সেরে ফেলুন। এগুলোর পাশাপাশি নিয়মিত ব্যায়াম করুন। দেখবেন পেটের মেদ নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

এক্ষেত্রে পেটের মেদ দ্রুত কমাতে প্রতিদিন যেসব ব্যায়ামের কথা বলেছেন বিশেষজ্ঞরা সেগুলো নিম্নরূপ-

বাইসাইকেল ক্রাঞ্চ

প্রথমে মেঝেতে সোজা হয়ে শুয়ে পরুন। হাতদুটো মাথার পেছনে রাখুন। দুই পা সোজা করে একটু উপরে ওঠান। এবার বাম পা সোজা রেখে ডান পা ভেঙে বুকের কাছে নিয়ে আসুন। এসময় আপনার কোমড় থেকে উপরিভাগ বাম দিকে একটু কাত করুন। একইভাবে ডান পা সোজা রেখে বাম পা ভেঙে পুণরায় করুন, যেন মনে হয় আপনি শুয়ে শুয়ে সাইকেল চালাচ্ছেন। এই ব্যায়ামটি এক মিনিট করে প্রতিদিন ৩ বার করার চেষ্টা করুন। এটি আপনার পেটের পেশীর ওপর অনেক চাপ সৃষ্টি করে, যা মেদ কমাতে কার্যকরী ভূমিকা রাখে।

বোটিং

এর ভঙ্গিটা অনেকটা নৌকা চালানোর মতো। প্রথমে মেঝেতে বসুন। পা দুটো সোজা করে উপর দিকে ওঠান। হাত দুটো সোজা করে হাটু বরাবর রাখুন। কোমড় থেকে শরীরের উপরের অংশ সোজ করে এমনভাবে রাখুন যেন তা আপনার পায়ের সাথে সমকোণ তৈরী করে। এভাবে থেকে পাঁচবার জোরে জোরে শ্বাস নিন এবং স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসুন। এই ব্যায়ামটি দৈনিক পাঁচবার করার চেষ্টা করুন।

প্লাঙ্ক

উপুর হয়ে মেঝেতে শুয়ে পরুন। হাতের কুনুই থেকে কব্জি পর্যন্ত মাটিতে স্পর্শ করিয়ে এবং পায়ের আঙুলের উপর ভর দিয়ে শরীরটাকে উপরে ওঠানোর চেষ্টা করুন। আপনার পেট এবং কোমড়ের নিচের পেশীগুলোকে শক্ত করে ১০ সেকেন্ড ধরে রাখুন। এবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসুন। প্রতিদিন চার বার করে এই ব্যায়ামটি অনুশীলন করুন।

ক্রাঞ্চেস

সোজা হয়ে মেঝেতে শুয়ে পড়ুন। এবার পা দুটো একটু ফাঁকা রেখে ভাঁজ করে দিন। হাত দুটো আপনার মাথার দুই পাশে অর্থাৎ কানের পেছনে রাখুন। এবার নিশ্বাস ছাড়তে ছাড়তে ওপরের দিকে উঠুন। খেয়াল রাখবেন মুখ দিয়ে ফুঁ দেওয়ার মতো করে নিশ্বাস ছাড়তে হবে এবং ঘাড়ে কোনো চাপ দেবেন না। মনোযোগ থাকবে আপনার পেটের মাংসপেশিতে। ঘাড় বাঁকা করবেন না। ঘাড় সোজা থাকবে এবং আপনি তাকিয়ে থাকবেন ওপরের দিকে অর্থাৎ সিলিংয়ের দিকে। এবার নিশ্বাস নিতে নিতে নিচের দিকে নামবেন, তবে পুরো মেঝেতে আপনার মাথা লেগে যাবে না; মেঝে থেকে আপনার মাথায় কিছুটা ফাঁক থাকবে। এভাবে আবার ওপরে উঠুন এবং নিচের দিকে ক্রাঞ্চ করে নামুন। খুব দ্রুতও করা যাবে না। মাঝারি একটা তালে করতে হবে। এভাবে মোট ১২ বার করে এক মিনিট শুয়ে বিশ্রাম নেবেন। পরে ঠিক একই নিয়মে আবার শুরু করে আবার ১২ বার করবেন। এভাবে ১২ বারে হবে এক সেট; এভাবে দুই সেট করুন। এ সময় আপনার পেটের মাংসপেশির সংকোচন ও প্রসারণের দিকে খেয়াল রাখুন।

লেগ রেইস

সোজা হয়ে মেঝেতে শুয়ে পড়ুন। পা দুটো জোড়া করে সোজা ৯০ ডিগ্রি ওপরে তুলে দিন। হাত দুটো সোজা পাশে রাখবেন। এবার নিশ্বাস নিতে নিতে পা দুটো জোড়া অবস্থায় নিচে নামান। তবে পা দুটো মেঝেতে লেগে যাবে না। আপনার পায়ের সঙ্গে মেঝের কিছুটা দূরত্ব থাকবে। ওই অবস্থায় নিশ্বাস ছাড়তে ছাড়তে আবার পা দুটো ৯০ ডিগ্রি ওপরে তুলে দিন। আবার নিচে নামান। মাথা থেকে কোমর পর্যন্ত মেঝেতে লেগে থাকবে। এভাবে ১২ বার করে দুই সেট করুন। এই ব্যায়াম তলপেটের জন্য খুবই উপকারী।

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে