advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ভোটার না আসার দায় দলের

নিজস্ব প্রতিবেদক
১ মার্চ ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১ মার্চ ২০১৯ ০৯:৪৫
advertisement

নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি কম হওয়ার দায় রাজনৈতিক দল ও প্রার্থীদের বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন ভোটের পরিবেশ তৈরি করে। তারা ভোটার আনে না। তাই আজ দুই সিটির নির্বাচনে ভোটারের উপস্থিতি যে কম এর দায় ইসির নয়; দায় প্রার্থী ও রাজনৈতিক দলগুলোরই।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদে উপনির্বাচনে এবং উত্তর ও দক্ষিণ সিটির নতুন ৩৬টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদের নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি কম হওয়া প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় উত্তরার ৫ নম্বর সেক্টরে আইইএস উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন সিইসি। নির্বাচনে সব দল যে এলো না, ইসি কি তার দায় নেবে, এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, এটা রাজনৈতিক দলের দায়। এখানে নির্বাচন কমিশনের কোনো দায় নেই। তিনি বলেন, দুটি কারণে ভোটার উপস্থিতি কম থাকতে পারে, একটি হচ্ছে স্বল্প সময়ের জন্য এই নির্বাচন। এক বছর পরে আবার নির্বাচন হবে, সে জন্য উপস্থিতি কম হতে পারে। আর সব রাজনৈতিক দল অংশ না নেওয়ায় ভোটাররা নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হবে না ভাবলে উপস্থিতি কম হতে পারে।

সিইসি যে কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন, সেই আইইএস উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের তিনটি কেন্দ্রে যথাক্রমে ২ হাজার ৯২৯, ২ হাজার ৪৬৯ এবং ৩ হাজার ২৮১ জন ভোটার রয়েছে। সকাল সোয়া ১০টা পর্যন্ত ৩ কেন্দ্রে ভোট পড়ে ৫১টি। সিইসি বলেন, দিন গড়ালে মানুষ বাড়তে পারে। তবে উপস্থিতি ওই রকম সংখ্যক না-ও হতে পারে। আমরা সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টি করে দিই। রাজনৈতিক দলগুলো বা প্রার্থীদের ভোটার নিয়ে আসতে হয়। আমরা বলে দিই পরিবেশ সুষ্ঠু আছে, সবকিছু নিরাপদ আছে এবং সবাই ভোট দিতে আসতে পারে।

এই নির্বাচনকে ভোটারবিহীন উল্লেখ করা হলে সিইসি বলেন, এ নির্বাচন ভোটারবিহীন নয়। ভোটার উপস্থিতি কম। দিন শেষে এই উপস্থিতি কিছুটা বাড়বে। তবে সার্বিক বিবেচনায় ভোটার উপস্থিতি কম। নির্বাচনব্যবস্থায় কোনো ত্রুটি নেই, দাবি করে সিইসি বলেন, পোলিং অফিসার, প্রিসাইডিং অফিসার, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিয়োগ করে দিয়েছি। কোনো ত্রুটি আছে বলে আমরা মনে করছি না। প্রথম দুই ঘণ্টায় এ কেন্দ্রে এক শতাংশের কম ভোট পড়ার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে নূরুল হুদা বলেন, এখন কিছু বলা যাচ্ছে না। ভোট তো ৪টা পর্যন্ত; তার পর বলা যাবে কেমন ভোট পড়ল।

advertisement