advertisement
advertisement

প্রধানমন্ত্রীর উপহারে জলিলের আনন্দ

১৪ মার্চ ২০১৯ ২১:৫৪ | আপডেট: ১৪ মার্চ ২০১৯ ২১:৫৪

জন্ম থেকেই শারীরিক প্রতিবন্ধী আবদুল জলিল। পড়াশোনার প্রতি টান থাকলেও দারিদ্র্যের জন্য এসএসসির গণ্ডির বাইরে পড়তে পারেননি। কিন্তু ছোট বয়স থেকেই ক্রিকেট খেলার প্রতি বেশ আসক্ত ছিলেন। তাই নিজে ক্রিকেটার হওয়ার পাশাপাশি ইচ্ছাশক্তির ওপর ভর করে পাঁচ বছর আগে গাজীপুরে একটি শারীরিক প্রতিবন্ধীদের ক্রিকেট টিম গড়ে তুলেন। এরপর আবদুল জলিল নিজেই দায়িত্ব নেন টিম ম্যানেজারের।

এরপর থেকেই নানা প্রয়োজনে ও কাজে তাকে দৌঁড়াতে হতো বিভিন্ন স্থানে। কিন্তু এতে প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়ায় হাঁটা-চলার সীমাবদ্ধতা। নানা বিষয় ভেবে-চিন্তে যখন কোনো কূল-কিনারা পাচ্ছিলেন না, তখনই দারস্থ হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে। আর এতেই বাধা খুলে যায় তার। 

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে জলিলের হাতে তার চাহিদামতো হুইল চেয়ার তুলে দেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির। আর এতেই যেন জলিলের আনন্দের বাধ ভেঙে যায়। জলিলের বাড়ি গাজীপুর সিটি এলাকার বোর্ডবাজার কুনিয়া গ্রামে। তার বাবার নাম আবদুল হালিম।

প্রতিবন্ধী জলিল জানান, তারা বাবা মারা যান ১৯৯৭ সালে। বাবা বলতেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের কাছে অসহায় কেউ কিছু চাইলে খালি হাতে ফেরে না। নিজের শারীরিক প্রতিবন্ধকতায় যখন নিজেকে খুব অসহায় মনে হচ্ছিল, তখনই বাবার সেই কথা মনে পরে। আর এমন চিন্তা থেকেই তিনি জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে গত বছরের ডিসেম্বর মাসে একটি চলাচলের বাহনের জন্য আবেদন করেছিলেন।

আবদুল জলিল আরও জানান, তার সংসারে স্ত্রী ছাড়াও এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। ছেলে এসএসসি পরীক্ষা দিলেও মেয়েটি দশম শ্রেণিতে পড়ে। একদিকে অভাব ও আরেকদিকে শারীরিক প্রতিবন্ধকতা নানা কারণে তার যেন আর চলছিল না। এখন অন্তত চলার ব্যবস্থা করায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। 

গাজীপুরের প্রশাসক ড. দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির জানান, প্রতিবন্ধী জলিলের আবেদনটি প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে পাঠানো হয়েছিল। দ্রুততম সময়ের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে বাহনের জন্য ২ লাখ টাকা বরাদ্দ হয়। পরে এই টাকা দিয়ে একটি ব্যাটারি চালিত হুইল চেয়ার তার হাতে তুলে দেওয়া হয়।