advertisement
Dr Shantu Kumar Ghosh
advertisement
Dr Shantu Kumar Ghosh
advertisement
advertisement

জয়রথে আবাহনী

ক্রীড়া প্রতিবেদক
১৫ মার্চ ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৫ মার্চ ২০১৯ ০০:০৯
নিউজিল্যান্ড সফর থেকে দেশে ফেরার পর ভারতে বেড়াতে গিয়েছিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। সেখান থেকে ফিরে চলতি ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) গতকাল আবাহনীর হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামেন বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের এই কাপ্তান। অপরাজিত ২৬ রান সংগ্রহের পাশাপাশি ২ উইকেট শিকার করেন মাশরাফি। তবে তাকে ছাপিয়ে আলো কেড়ে নেন সাইফউদ্দিন। ৪৫ বলে অপরাজিত ৫৯ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলার পাশাপাশি এক উইকেট শিকার করেন এই অলরাউন্ডার। তাতে ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষে ১৪ রানের দারুণ জয় পায় আবাহনী। তাদের টানা তৃতীয় জয় এটি। অপর ম্যাচে এনামুল হক বিজয়ের অপরাজিত সেঞ্চুরির সুবাদে প্রাইম ব্যাংক ৯ উইকেটে হারিয়েছে রূপগঞ্জকে। অন্য ম্যাচে জিয়াউর রহমানের বিধ্বংসী বোলিংয়ের সুবাদে শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে ১২ রানের অবিশ্বাস্য জয় তুলে নেয় শেখ জামাল। লিগে তাদের প্রথম জয় এটি। মিরপুরে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৩৬ রানের স্কোর দাঁড় করায় আবাহনী। মোসাদ্দেক হোসেন ৫৪, নাজমুল হোসেন শান্ত ৪৪ রান করে আউট হলেও ইনিংসের শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন সাইফউদ্দিন। সপ্তম উইকেটে মাশরাফির সঙ্গে অবিচ্ছিন্ন ৬২ রানের জুটি গড়েন তিনি। সাইফউদ্দিনের ব্যাট থেকে আসে ৪৫ বলে ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় হারা না মানা ৫৯ রানের ঝলমলে ইনিংস। ১৫ বল খেলে ৩টি চার ও একটি ছক্কায় অপরাজিত ২৬ রান করেন মাশরাফি। ব্রাদার্সের পক্ষে মেহেদী হাসান ও নাঈম ইসলাম জুনিয়র ২টি করে উইকেট নেন। জয়ের জন্য ২৩৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে ইয়াসির আলী (অপরাজিত ১০৬) সেঞ্চুরি হাঁকালেও জয় তুলে নিতে পারেনি ব্রাদার্স। ৮ উইকেট হারিয়ে ২২২ রানে থেমে যায় তাদের ইনিংস। মাশরাফি ও সাব্বির ২টি করে উইকেট পান। ৫৪ রান দিয়ে একটি উইকেট শিকার করেন সাইফউদ্দিন। অলরাউন্ড নৈপুণ্যে ম্যাচসেরা পুরস্কার জিতে নেন তিনি। বিকেএসপিতে প্রাইম ব্যাংকের বিপক্ষে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৬৩ রানে গুটিয়ে যায় রূপগঞ্জের ইনিংস। তাদের পক্ষে মোহাম্মদ নাঈম সর্বোচ্চ ৫২, জাকের আলী ৪৭ রান করেন। মোহর শেখ ৮ ওভারে মাত্র ১৪ রান দিয়ে ২ উইকেট পান। এ ছাড়া রাজ্জাক, কাপালি, আল-আমিন ও আরিফুল ২টি করে উইকেট নেন। জবাবে ১৮.৩ ওভার হাতে রেখে বিজয়ের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে সহজ জয় তুলে নেয় প্রাইম ব্যাংক। ১১১ বল খেলে ১২টি চার ও ২টি ছক্কায় অপরাজিত ১০০ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচসেরা হন বিজয়। ফতুল্লায় কুয়াশা থাকার কারণে শেখ জামাল-শাইনপুকুরের ম্যাচ দেরিতে শুরু হয়। খেলার দৈর্ঘ্যও নেমে আসে ৪৬ ওভারে। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে মাত্র ১০৬ রানে গুটিয়ে যায় শেখ জামাল। সাব্বির ৪, শরিফুল ৩ উইকেট নেন। কম রানের পুঁজি নিয়েও নাটকীয়ভাবে লিগে প্রথম জয় তুলে নেয় শেখ জামাল। জিয়াউরের ক্যারিয়ারসেরা বোলিংয়ে মাত্র ৯৪ রানেই গুটিয়ে যায় শাইনপুকুরের ইনিংস। ১০ ওভারে মাত্র ২৩ রানে দিয়ে ৫ উইকেট শিকার করেন জিয়াউর। সালাউদ্দিন ৪ উইকেট পান।