advertisement
advertisement

সব ধরনের অন্যায়কে ‘না’ বলতে শিখতে হবে

এমি জান্নাত
১৬ মার্চ ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৬ মার্চ ২০১৯ ০০:০৬
‘পাওয়ার অব সি’-এর কর্ণধার সাবিনা সাবি ‘না বলতে শিখুন’ শ্লোগান নিয়ে নারী দিবস উপলক্ষে গত ৯ মার্চ ঢাকা ক্লাবে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সংগীতশিল্পী ফাতেমা তুজ জোহরা, মানবাধিকারকর্মী সালমা আলী, অভিনয়শিল্পী শম্পা রেজা, নারী বিশ্ব ভ্রমণকারী নাজমুন নাহার, মনোরোগ বিশেষজ্ঞ মেখলা সরকার, ফ্যাশন ডিজাইনার লিপি খন্দকার, নভীনস অ্যারোমার কর্ণধার আমিনা হকসহ অনেকে। আয়োজনের উদ্যোক্তা সাবিনা সাবি বলেন, ‘পাওয়ার অব সি’ প্রজেক্টে নারীদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাজ করছি। নিজেদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করা প্রধান লক্ষ্য। এরমধ্যে রয়েছে ঋতুকালীন স্বাস্থ্যবিধি, যানবাহনে মেয়েদের বিভিন্ন সমস্যা, উচ্চশিক্ষায় পরিবারের বাধা, কর্মক্ষেত্রে নানা বিপত্তির বিষয়ে সচেতন করাই আমাদের মূল লক্ষ্য। এসব বিষয়কে প্রাধ্যান্য দিয়েই বলতে চেয়েছি, নারীদের ‘না’ বলতে শিখতে হবে।’ মনোরোগ বিশেষজ্ঞ মেখলা সরকার বলেন, ‘না’ বলাটা হলো অন্যের ইচ্ছা বা সিদ্ধান্তকে আমি আমার জীবনে কতটুকু মঞ্জুর করব, তার সীমাটা আগে ঠিক করে নিতে হবে। এটা যে শুধু পুরুষের বিরুদ্ধে তা কিন্তু নয়, এটা হতে পারে মা, বোন, বন্ধু অর্থাৎ পরিবারের যে কোনো সদস্য বা আশপাশের যে কারো বিরুদ্ধে। আমি কতটুকু চাই, নিজের প্রাধান্য নিজের কাছে কতটুকু, সেটা প্রথমে ঠিক করতে হবে। শম্পা রেজা বলেন, আমি নারীবাদী নই। আমি মানববাদী। নারীদের কেন আলাদা করে দেখা হবে! এ বিষয়টাকেই আগে ‘না’ বলতে হবে যে নারীরা আলাদা নয়। এটাই নারীর অধিকার, এটাই আধুনিকতা। ফাতেমা তুজ জোহরা বলেন, কোন কোন ক্ষেত্রে আমরা ‘না’ বলব আর কোন কোন ক্ষেত্রে ‘হ্যাঁ’ বলব, সেটা আগে নিজেদের ঠিক করে নিতে হবে। নর-নারী কোনো সাংঘর্ষিক সম্পর্ক নয়, বরং তারা একে অন্যের পরিপূরক। পাশের মানুষটির সঙ্গে দ্বন্দ্ব নয়, বন্ধুত্বপূর্ণ মনোভাব বজায় রাখতে হবে উভয় পক্ষকে।