advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

খালেদার মুক্তির দাবিতে বিএনপির বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৩ মার্চ ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ মার্চ ২০১৯ ০৯:০১
advertisement

চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে গতকাল শুক্রবার বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি। দলের সিনিয়র যুগ্ম হাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ মিছিলের নেতৃত্ব দেন। মিছিল শেষে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরীর পরিচালনায় সংক্ষিপ্ত পথসভায় বক্তব্য রাখেন রিজভী।

বেলা পৌনে ১১টার দিকে নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হওয়া মিছিলটি নাইটিঙ্গেল মোড় ঘুরে আবার দলীয় কার্যালয়ের সামনে এসে সংক্ষিপ্ত পথসভার মধ্য দিয়ে শেষ হয়। পথসভায় রুহুল কবির রিজভী বলেন, দেশে নৈরাজ্যজনক পরিস্থিতি আর চলতে দেওয়া যায় না। স্বৈরশাসনের কশাঘাতে জনগণের মনে বিষাদঘন অবস্থা বিরাজমান। খালেদা জিয়াকে আটকে রাখা হয়েছে দস্যুবৃত্তির পন্থায়। তাকে চিকিৎসা না দিয়ে অসুস্থতাকে গুরুতর করার যাবতীয় ব্যবস্থা করে যাচ্ছে সরকার। খালেদা জিয়া যেন মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন সেই প্রহর গুনছেন প্রধানমন্ত্রী।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে অনুষ্ঠিত এই মিছিলের অগ্রভাগে ছিলেন রুহুল কবির রিজভী ছাড়াও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুণ রায় চৌধুরী, মৎস্যজীবী দলের সদস্য সচিব আবদুর রহিম, নীলফামারী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আলমগীর সরকার। এ ছাড়াও মিছিলে অংশ নেন ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জ (দক্ষিণ) থানা বিএনপি, মৎস্যজীবী ও তাতী দলের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী। সংক্ষিপ্ত পথসভায় রুহুল কবির রিজভী আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘৭৫-এর হুবহু বাকশাল পুনঃপ্রবর্তনের অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন। তার এ বক্তব্য এক ভয়াবহ অশনিসংকেত। দেশে আরও বিপজ্জনক দুঃসময়ের অশুভ বার্তা তার এ বক্তব্য। গণতন্ত্র হত্যাই আওয়ামী লীগের আদর্শ।

তিনি আরও বলেন, গণতন্ত্র যাতে পুনরুজ্জীবিত হতে না পারে এ জন্য এ দেশের জনপ্রিয় নেত্রী বেগম জিয়াকে বিনা দোষে, বিনা কারণে মিথ্যা মামলা দিয়ে বন্দি রাখা হয়েছে। বাংলাদেশের কারাগারগুলো এখন শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত কয়েদখানায় পরিণত হয়েছে, যেখানে তিনি তার খেয়াল-খুশি মতো বিরোধী রাজনীতিবিদদের বন্দি রাখতে পারেন।

advertisement
Evall
advertisement