advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘দূতাবাসে গুপ্তচরবৃত্তি চালিয়েছেন অ্যাসাঞ্জ’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১৬ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৬ এপ্রিল ২০১৯ ০৯:০৬

ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট লেনিন মোরেনো বলেছেন, লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসকে গুপ্তচরবৃত্তির কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করছিলেন জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। এ ছাড়া তার আশ্রয় বাতিল করার পেছনে অন্য কোনো দেশের ইন্ধন নেই বলে দাবি করেছেন তিনি। খবর বিবিসি।

সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানকে মোরেনো বলেন, ইকুয়েডরের সাবেক সরকার অন্য রাষ্ট্রের কার্যক্রমে ‘হস্তক্ষেপ’ করার উদ্দেশ্যে তাদের দূতাবাসের ভেতরে সহায়তা প্রদান করত। তবে অ্যাসাঞ্জের আইনজীবী এসব অভিযোগকে ‘যাচ্ছেতাই অভিযোগ’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

আসাঞ্জের আইনজীবী জেনিফার রবিনসন ব্রিটিশ টেলিভিশন চ্যানেল স্কাইয়ের এক অনুষ্ঠানে এই অভিযোগ অস্বীকার করেন। বিশ্বব্যাপী সাড়া জাগানো ওয়েবসাইট উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা অ্যাসাঞ্জকে গত সপ্তাহে আটক করেছে ব্রিটিশ পুলিশ। ধারণা করা হচ্ছে তাকে যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দেওয়া হবে। যুক্তরাষ্ট্রের হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্যই ২০১২ সালে তিনি ইকুয়েডরের দূতাবাসে আশ্রয় নিয়েছিলেন।