advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

যা করেছি তা ভাবাবেগে তাড়িত হয়ে

নিজস^ প্রতিবেদক
১৮ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০১৯ ০৯:৪০

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের প্রার্থী কানাইয়ালাল আগরওয়ালের প্রচারে বাংলাদেশের চিত্রনায়ক ফেরদৌস আহমেদের উপস্থিতি তুমুল বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। দেশটির নির্বাচনী প্রচারে ফেরদৌসের উপস্থিতি ঠিক নয় জানিয়ে গত মঙ্গলবার ভারতের বাংলাদেশ হাইকমিশন এই চিত্রনায়ককে দেশে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেয়। পরে ফেরদৌস ওই রাতেই দেশে ফিরে আসেন।

ইতোমধ্যে শর্ত ভঙ্গের অপরাধে ভারত ফেরদৌসের ভিসা বাতিল করে তাকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে। তবে দেশে ফিরে একাধিকবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া এই নায়ক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ভারতে ভোটের প্রচারে অংশ নেওয়ায় নিজের অবস্থানের ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

advertisement

ফেরদৌস বলেন, ‘আমি একজন চিত্রনায়ক। অভিনয় আমার একমাত্র নেশা ও পেশা। অভিনয়ের মাধ্যমে বাংলাভাষী সবার মধ্যে মেলবন্ধন তৈরিতে সর্বদা কাজ করার চেষ্টা করেছি। আমার ভাবতে ভালো লাগে, আমি দুই বাংলায় সমানভাবে জনপ্রিয়। পশ্চিমবঙ্গের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সঙ্গে আমার সম্পর্ক বহুদিনের। সেখানের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেক শিল্পী, সাহিত্যিক আমার বন্ধু। যাদের সঙ্গে আমি সব সময়ে হৃদ্যতা অনুভব করি। এ জন্য বিভিন্ন সময় কারণে-অকারণে আমি সেখানে চলে যাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভারতে জাতীয় নির্বাচন হচ্ছে। বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতান্ত্রিক দেশের এই নির্বাচন পূর্বের মতো সারা বিশ্বে সাড়া ফেলেছে। এই সময়ে আমি ভারতে অবস্থান করছিলাম। সকলের মতো আমারও আগ্রহের জায়গায় ছিল এই নির্বাচন। ফলে ভাবাবাগে তাড়িত হয়ে পশ্চিমবঙ্গের একটি নির্বাচনী প্রচারে আমি সহকর্মীদের সঙ্গে অংশগ্রহণ করি। এটা পূর্বপরিকল্পনার কোনো অংশ ছিল না। শুধু আবেগের বশবর্তী হয়ে আমি অংশগ্রহণ করেছি। কারও প্রতি বিশেষ আনুগত্য প্রদর্শন বা কোনো বিশেষ দলের প্রচারের লক্ষ্যে নয়, আবার কারও প্রতি অসম্মান প্রদর্শন করাও আমার উদ্দেশ্য নয়। ভারতের সকল রাজনৈতিক দল এবং নেতার প্রতি আমার সম্মান রয়েছে। আমি ভারতের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল।’