advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সারাদেশে জাল নোট ছড়াচ্ছেন দুই নারী

চট্টগ্রাম ব্যুরো
১৮ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০১৯ ১০:১৮

সারাদেশে জাল টাকা ছড়াচ্ছেন দুই নারী। তাদের সহযোগিতা দিচ্ছেন একজন পুরুষ। তিনজনকেই গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তার করার সময় তাদের কাছ থেকে প্রতিটি ১০০০ টাকা মূল্যমানের ১৩৫টি জাল নোট উদ্ধার করা হয়।

গত মঙ্গলবার রাতে ও গতকাল বুধবার ভোরে নগরীর স্টেশন রোড ও কুমিল্লার কোতোয়ালি এলাকা থেকে ওই তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- স্বপ্না বেগম তানিয়া (৩০) ও ফেরদৌসী বেগম (৫২) এবং তাদের সহযোগী মো. শামীম (২১)। স্বপ্না ও শামীমকে গ্রেপ্তার করা হয় চট্টগ্রাম নগরীর স্টেশন রোড থেকে।

তাদের তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার ভোরে কুমিল্লা সদরে অভিযান চালিয়ে ফেরদৌসী বেগমকে গ্রেপ্তার করা হয়। স্বপ্নার বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়, শামীমের বাড়ি মুন্সীগঞ্জ এবং ফেরদৌসী বেগমের বাড়ি কুমিল্লা জেলায়।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন আমাদের সময়কে বলেন, ফেরদৌসী বেগম কুমিল্লা থেকে স্বপ্নাকে চট্টগ্রাম নগরীতে পাঠিয়েছিল জাল নোটগুলো সরবরাহ করার জন্য। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে স্বপ্না ও শামীমকে আটকের পর ফেরদৌসীকেও আটক করা হয়। স্বপ্না ও শামীমকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে এক পর্যায়ে তারা জাল নোট সরবরাহের কথা স্বীকার করেন।

পুলিশ স্বপ্নার ডান হাতে থাকা ব্যাগ থেকে ১০০টি সিরিজ নং-খ ল-৪৮৬০২৩০ লেখা এক হাজার টাকার জাল নোট উদ্ধার করে এবং শামীমের প্যান্টের বাম পকেট থেকে ৩৫টি সিরিজ নং-খ ল-৪৮৬০২৩০ লেখা এক হাজার টাকার জাল নোট উদ্ধার করে। মোট এক লাখ ৩৫ হাজার টাকার জাল নোট উদ্ধার করা হয়।

ওসি মহসীন আরও জানান, গ্রেপ্তার হওয়া দুই নারী সারাদেশে জাল টাকা সরবরাহ করতেন। তারা জাল নোট বিক্রি ও সরবরাহকারী চক্রের সক্রিয় সদস্য। স্বপ্নার বিরুদ্ধে কুমিল্লা জেলার বিভিন্ন থানায় তিনটি এবং ফেরদৌসী বেগমের বিরুদ্ধে কুমিল্লা ও কক্সবাজারে চারটি মামলা রয়েছে। জাল নোট উদ্ধারের ঘটনায় ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫-অ (ই) ধারায় তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।