advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণের পর হত্যায় ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি
১৯ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৯ এপ্রিল ২০১৯ ০৯:৪৪

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আয়েশা খাতুন (২৪) নামে প্রতিবন্ধী এক তরুণীকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় পাঁচ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২-এর বিচারক শওকত আলী এ রায় দেন।

রায় ঘোষণার সময় আদালতে দুই আসামি উপস্থিত ছিলেন। অন্যরা পলাতক রয়েছেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হচ্ছেন সদর উপজেলার চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের মালবাগডাঙ্গা গ্রামের শ্যামাপদ রবিদাসের ছেলে নয়ন কর্মকার রবিদাস (৩২), রতন রবিদাসের ছেলে নিতাই চন্দ্র রবিদাস (৩০), মৃত সচেন দাসের ছেলে সুভাস দাস (৪৬) এবং চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের চাকপাড়া গ্রামের খোকন রবিদাসের ছেলে প্রশান্ত রবিদাস (২৮) ও সোনারপট্টি গ্রামের বিরেন দাসের ছেলে প্রশান্ত রবিদাস (২৬)।

মামলার বিবরণে জানা যায়, সদর উপজেলার কালিনগর বাবলাবোনা এলাকার মফিজুল ইসলামের মেয়ে আয়েশা খাতুন ২০১৫ সালের ১৩ জুন সন্ধ্যার পর মামার বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়। পরের দিন সদর উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের মহাসড়কের পাশের একটি ডোবায় ভাসমান অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় আয়েশার পরিবার কোনো মামলা করেনি। তবে সদর মডেল থানার এসআই শামীম আকতার ময়নাতদন্তের রিপোর্টের ভিত্তিতে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের নামে ২০১৫ সালের ৯ আগস্ট মামলা করেন। তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ১৪ ডিসেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) সরোয়ার রহমান।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট আঞ্জুমান আরা জানান, আদালতে ১৪ সাক্ষীর সাক্ষ্য প্রদান ও যুক্তিতর্ক শেষে বিজ্ঞ বিচারক পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড, অনাদায়ে প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা করে জরিমানা করেন। আর অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় কৃষ্ণ, আব্দুর রহিম ও সোহাগী বেগম নামে তিনজনকে বেকুসুর খালাস দেন।