advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সাবেক এমপি মাহজাবীন ও তার স্বামীর বিরুদ্ধে পরোয়ানা

চট্টগ্রাম ব্যুরো
২০ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২০ এপ্রিল ২০১৯ ০৯:২৪

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা দুই মামলায় জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি মাহজাবীন মোরশেদ ও তার স্বামী চট্টগ্রাম চেম্বারের সাবেক সভাপতি মোরশেদ মুরাদ ইব্রাহীমের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। গত বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম শফি উদ্দিন এই আদেশ দেন।

তাদের বিরুদ্ধে বেসিক ব্যাংক থেকে ২৯৬ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে। মোরশেদ মুরাদ জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান। মাহজাবীন দলের চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সাবেক সভাপতি এবং সংরক্ষিত মহিলা আসন ৪৫-এর সাবেক এমপি।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ক্ষমতার অপব্যবহার করে পরস্পর যোগসাজশে আসামিরা পর্যাপ্ত জামানত না দিয়ে এবং বেসিক ব্যাংকের শাখা কার্যালয়ের নেতিবাচক মতামত সত্ত্বেও ঋণ মঞ্জুর ও তা উত্তোলন করেন। ২০১০ সালের ১৩ ডিসেম্বর থেকে গত বছর ৯ নভেম্বর পর্যন্ত এই দুর্নীতি ঘটে। মাহজাবীন মোরশেদ আইজি নেভিগেশন লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠানের এমডি হিসেবে ওই ঋণের আবেদন করেছিলেন।

মামলায় মাহজাবীন ছাড়াও আইজি নেভিগেশনের পরিচালক সৈয়দ মোজাফফর হোসেন, বেসিক ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ফখরুল ইসলামকে আসামি করা হয়। আরেক মামলায় মোরশেদ মুরাদ এবং বেসিক ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক একেএম সাজেদুর রহমানকে আসামি করা হয়। অভিযোগে বলা হয়, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে মোরশেদ মুরাদের মালিকানাধীন ক্রিস্টাল স্টিল অ্যান্ড শিপ ব্রেকিং লিমিটেডের নামে ১৩৪ কোটি ৯৩ লাখ ৬৬ হাজার ১৮৫ টাকা আত্মসাৎ করেন। ২০০৯ সালের ২২ ডিসেম্বর থেকে গত বছরের ২০ আগস্ট পর্যন্ত এ ঘটনা ঘটেছে। ২০১৮ সালের ১০ জানুয়ারি নগরীর ডবলমুরিং থানায় মামলা দুটি করা হয়।

দুদক কর্মকর্তা এমরান হোসেন বলেন, মামলার পর থেকে মাহজাবীন ও মোরশেদ মুরাদ অন্তর্বর্তীকালীন জামিনে ছিলেন। আত্মসাৎ করা টাকা কিস্তিতে পরিশোধের জন্য আদালত তাদের নির্দেশ দেন। কিন্তু তা না করে এবং আদালতে হাজির না হওয়ায় মহানগর দায়রা জজ তাদের জামিন বাতিল করেছেন। পরে মহানগর হাকিম পরোয়ানা জারি করেন।