advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

উবারে ফেনসিডিল পাচার গোলাগুলি যুবক গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক
২০ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২০ এপ্রিল ২০১৯ ০৯:৩৫

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে গোলাগুলির পর অস্ত্র ও গুলিসহ মো. আলম মিয়া নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গতকাল শুক্রবার সকালে তালতলা মুক্তি হাউজিং এলাকায় গ্রেপ্তার এ মাদক ব্যবসায়ী উবারের ভাড়া করা গাড়িতে করে ফেনসিডিল পাচার করছিল। এ ঘটনায় এবি সিদ্দিক নামে এক র‌্যাব সদস্যও আহত হয়েছেন।

র‌্যাব ২-এর অধিনায়ক (সিও) লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ জানান, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল সকালে রাজধানীর পৃথক তিনটি স্থানে চেকপোস্ট বসায় র‌্যাব। সকাল ৯টার দিকে একটি প্রাইভেটকার সাভারের হেমায়েতপুরে পৌঁছলে র‌্যাবের চেকপোস্ট দেখে দ্রুতগতিতে বেরিয়ে যায় মাদক ব্যবসায়ীরা। এ সময় তাদের থামাতে গিয়ে গাড়ির ধাক্কায় এবি সিদ্দিক নামে এক র‌্যাব সদস্য আহত হন। গাবতলীর কাছে আসার পর প্রাইভেটকারে থাকা তিনজনের মধ্যে মো. রহমান নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নেমে যায়। এর পর মিরপুর থেকে মাজার রোড হয়ে আগারগাঁও অভিমুখে গাড়িটি দ্রুতগতিতে চলতে থাকে। এমনকি প্রাইভেটকারটি চারটি সিএনজি ও পাঁচ থেকে ছয়টি রিকশাকে ধাক্কা দিয়ে চলে যায়।

তবে শেষ রক্ষা হয়নি। সকাল পৌনে ১০টার দিকে শেরেবাংলানগর তালতলা মুক্তি হাউজিং এলাকায় র‌্যাব সদস্যরা গাড়িটি আটকে দেয়। এ সময় দুই মাদক ব্যবসায়ী গাড়ি থেকে নেমেই র‌্যাব সদস্যদের ওপর গুলি ছুড়ে। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব সদস্যরাও গুলি ছুড়লে মো. আলম মিয়া আহত হন। আরেকজন পালিয়ে যান। অস্ত্র ও গুলিসহ আলম মিয়া আটকের পর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে পাঠানো হয়। তার ব্যবহৃত প্রাইভেটকারসহ শতাধিক বোতল ফেনসিডিলও জব্দ করা হয়েছে।

লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ জানান, আলম মিয়া পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী। দীর্ঘদিন ধরে অ্যাপভিত্তিক পরিবহনসেবা উবারের গাড়ি ভাড়া নিয়ে ইয়াবা ও ফেনসিডিল চালান কাক্সিক্ষত গন্তব্যে পাঠিয়ে আসছিল। আলমসহ অজ্ঞাত কয়েকজনের বিরুদ্ধে শেরেবাংলা থানায় মাদক, র‌্যাব সদস্যদের ওপর হামলা ও অস্ত্র আইনে পৃথক তিনটি মামলা করা হয়েছে। এদিকে মাদকবিরোধী অভিযানে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে ৭৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে শুক্রবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ডিএমপির বিভিন্ন থানা ও গোয়েন্দা পুলিশ পৃথক এ অভিযান চালায়।

তাদের কাছ থেকে তিন হাজার ১০৯ পিস ইয়াবা, ১ কেজি ২২০ গ্রাম হেরোইন, এক কেজি ৮২০ গ্রাম গাঁজা, ৪২২ বোতল ফেনসিডিল ও ২ বোতল বিয়ার উদ্ধার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ৪৮ মামলা করা হয়েছে বলে জানান ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার মো. ওবায়দুর রহমান।