advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

প্রতিরোধ ও নির্মূল করতে ব্যবস্থা নিন

২০ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০
আপডেট: ২০ এপ্রিল ২০১৯ ০৯:২৯

মশাবাহিত সংক্রামক রোগ ম্যালেরিয়া। এ রোগ সম্পর্কে মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করতে প্রতিবছর সারাবিশ্বে একযোগে ম্যালেরিয়া দিবস পালন করা হয়।

২৫ এপ্রিল বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবস সামনে রেখে গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর মহাখালীর স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডা. শহীদ মিলন ভবনে জাতীয় ম্যালেরিয়া নির্মূল ও এডিসবাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। এতে জানা যায়, বাংলাদেশের প্রায় ১ কোটি ৮০ লাখ মানুষ ম্যালেরিয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে, যা উদ্বেগজনক। দেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে ১৩টিতে এ রোগের প্রাদুর্ভাব সবচেয়ে বেশি।

মোট ম্যালেরিয়া রোগীর শতকরা প্রায় ৯১ ভাগই বান্দরবান, রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ি জেলার। এ তিন জেলা সীমান্তবর্তী, পাহাড় ও বনাঞ্চলবেষ্টিত হওয়ায় সেখানে এ রোগের প্রকোপ বেশি। তিন পার্বত্য জেলাকে ম্যালেরিয়া নির্মূল করতে বেশি অগ্রাধিকার দিতে হবে। আমরাও ঝুঁকির বাইরে নই এবং অবশ্যই এ বিষয়ে আমাদের সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। বিশেষ করে মশাবাহিত এ রোগ সম্পর্কেও আমাদের জানতে হবে। ম্যালেরিয়া রোগ সম্পূর্ণ প্রতিকার ও প্রতিরোধযোগ্য।

মশাবাহিত রোগ থেকে নিরাপদ দূরত্বে থাকতে হলে সচেতনতা অবলম্বন করা দরকার। মশার কামড় থেকে দূরে থাকাই এ রোগ প্রতিরোধের উপায়। আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে, দিনে বা রাতে ঘুমানোর সময় অবশ্যই মশারি বা কয়েল ব্যবহার করা দরকার। দরজা-জানালায় মশক নিরোধক জাল, প্রতিরোধক ক্রিম, স্প্রে ব্যবহার করা। ঘরের আশপাশে কোথাও যেন পানি জমে মশা বংশবিস্তার না করতে পারে, সেদিকে খেয়াল রাখা বা স্থির জলাধার, জলাবদ্ধ এলাকা নিয়মিত পরিষ্কার করা।

ম্যালেরিয়াপ্রবণ এলাকায় বেড়াতে গেলে আগে থেকেই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া বা ম্যালেরিয়া প্রতিরোধী ওষুধ সঙ্গে রাখা। এ রোগ নির্মূলে সরকারের সহযোগিতা প্রয়োজন। আমাদের সচেতনতা, উদ্যম, চেষ্টা ও প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করার মাধ্যমে ভয়ঙ্করতম এ রোগকে মোকাবিলা করতে পারি। এই দিবসে পৃথিবী থেকে ম্যালেরিয়া রোগ নির্মূলে আমাদের সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। ম্যালেরিয়া মুক্ত বাংলাদেশ যা সবার সহযোগিতায়, খুব দ্রুত অর্জন করা সম্ভব।