advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শত্রুতা ভুলে এক মঞ্চে মায়া-মুলায়ম

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
২০ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২০ এপ্রিল ২০১৯ ০৮:৫৭

দীর্ঘ ২৫ বছরের বৈরিতা। একে অপরকে শত্রুজ্ঞান করতেন। কিন্তু এতদিনের বিরোধিতা ভুলে গতকাল একমঞ্চে দাঁড়ালেন মায়াবতী ও মুলায়ম সিং যাদব। একে অপরের প্রশংসা করলেন। মুলয়মের নিজের কেন্দ্র মৈনপুরিতে গতকাল হাজার হাজার জনতা এ দৃশ্যের সাক্ষী হলেন। খবর এনডিটিভি।

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে উত্তরপ্রদেশে এবার বিজেপিকে আটকাতে মায়াবতীর বহুজন সমাজবাদী দল (বিএসপি) ও সমাজবাদী দলের (এসপি) মধ্যে পাকা জোট হয়েছে। কিন্তু এতদিন এই জোটের শক্তি নিয়ে অনেকেই সংশয় প্রকাশ করেছেন। কেননা এর মূল উদ্যোক্তা ছিলেন অখিলেশ যাদব। মুলায়ম ছিলেন এই জোটের বিরোধী। এ কারণে মায়াবতী ও মুলায়মকে একমঞ্চে দেখা যাবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় ছিল গোড়া থেকেই।

এ ছাড়া এই দুই দলের তিনটি যৌথ জনসভায় মুলায়ম স্বাস্থ্যের দোহাই দিয়ে যোগ দেননি। তাতে সন্দেহ আরও বেড়েছিল। কিন্তু সেই সংশয় গতকাল কেটে গেল। সভায় মায়াবতী বলেন, মুলায়ম সিং যাদব সত্যিকারের নেতা, মোদির মতো ভুয়া নেতা নন। অন্যদিকে মায়াবতীর প্রশংসা করে মুলায়ম কর্মীদের মায়াবতীর পা ছুঁয়ে দেখার কথা বলেন। মায়াবতী-মুলায়মের গতকালের যৌথ সভায় সবটাতেই ছিল ঐক্যের সুর। বিজেপিকে হারাতে দলিত-মুসলিম-পিছড়ে বর্গকে একাট্টা হওয়ার কথা বলেন তারা।

পুরনো তিক্ততার প্রসঙ্গ টেনে মায়াবতী বলেন, সময়ের সঙ্গে অনেক পাল্টে গেছেন মুলায়মজি। সাধারণ মানুষের জন্য তিনি অনেক কিছু করেছেন। সমাজবাদী পার্টির শাসনকালে নারীদের উন্নতির জন্য অনেক কিছু করা হয়েছে। ১৯৯৫ সালে মায়াবতী-মুলায়মের বৈরিতার শুরু। সেই সময় উত্তরপ্রদেশের ক্ষমতায় তাদেরই জোট সরকার ছিল। কিন্তু দুবছর যেতেই সরকার থেকে বেরিয়ে বিজেপির সঙ্গে হাত মিলিয়েছিলেন মায়াবতী। প্রতিশোধ নিতে যে গেস্টহাউসে মায়াবতী ছিলেন, সেখানে চড়াও হয়েছিলেন মুলায়ম সমর্থকরা। সেই সময় তাকে নিগ্রহও করা হয়েছিল।