advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয়, দাবি এমডির 

নিজস্ব প্রতিবেদক
২০ এপ্রিল ২০১৯ ১৯:৫২ | আপডেট: ২০ এপ্রিল ২০১৯ ১৯:৫২
advertisement

টিআইবি থেকে প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে ঢাকা ওয়াসা। আজ শনিবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করে ওই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যানের ঘোষণা দেয় ওয়াসা। এ সময় প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাকসিম এ খান বলেন, ‘ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয়।’

এর আগে গত বুধবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে অবস্থিত মাইডাস সেন্টারে ‘ঢাকা ওয়াসা : সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক একটি গবেষণার প্রতিবেদন প্রকাশ করে দুর্নীতিবিরোধী সংগঠন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘ঢাকা ওয়াসার পানির নিম্নমানের কারণে ৯৩ শতাংশ গ্রাহক বিভিন্ন পদ্ধতিতে পানি পানের উপযোগী করে। এর মধ্যে ৯১ শতাংশ গ্রাহকই পানি ফুটিয়ে পান করে। গৃহস্থালি পর্যায়ে পানি ফুটিয়ে পানের উপযোগী করতে প্রতিবছর আনুমানিক ৩৩২ কোটি টাকার গ্যাসের অপচয় হয়।’

প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়, গবেষণাটির জন্য টিআইবি মাঠপর্যায়ে দৈবচয়নের ভিত্তিতে ওয়াসার ১০টি মডস জোনের মোট ২ হাজার ৭৬৮ জন গ্রাহকের মতামত নেয়। জরিপের ফলাফলে বলা হয়, এই গ্রাহকদের ৩৭ দশমিক ৫ শতাংশই ওয়াসার সেবায় অসন্তুষ্ট। এর মধ্যে ২০ দশমিক ১ শতাংশ সন্তুষ্ট। আর ৪২ দশমিক ৪ শতাংশ গ্রাহক ওয়াসার সেবায় মোটামুটি সন্তুষ্ট।

গবেষণায় ১৩ দফা সুপারিশ করেছে টিআইবি। এর মধ্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের জন্য তিনটি এবং ওয়াসার জন্য ১০টি। ওয়াসার চুক্তিভিত্তিক পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা ও পেশাগত অভিজ্ঞতা বিচার করার সুপারিশ করা হয়েছে। এ ছাড়া এসব নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রার্থীর বয়সের ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়ন, নিরপেক্ষ ও প্রভাবমুক্ত ব্যক্তিদের নিয়োগের সুপারিশ করে টিআইবি। ওয়াসার ড্রেনেজ ব্যবস্থাপনা একাধিক কর্তৃপক্ষের হাতে না রেখে একটি কর্তৃপক্ষের হাতে দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে প্রতিবেদনে।

ওই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খান বলেন, ‘টিআইবি যে পদ্ধতিতে এ গবেষণা করেছে সেটি একপেশে ও উদ্দেশ্যমূলক। এটি পেশাদারি গবেষণা হয়নি। ৩৩২ কোটি টাকার অপচয়ের বিষয়ে টিআইবির গবেষণা অনুমান নির্ভর ও বাস্তবতা বিবর্জিত। ঢাকা ওয়াসার সরবরাহ করা পানি উৎস থেকে গ্রাহকের জলাধার পর্যন্ত পানি সম্পূর্ণ শতভাগ বিশুদ্ধ ও নিরাপদ।’

তাকসিম এ খান বলেন, সবাই এ পানি ফুটিয়ে খায় তাহলে জারের পানি ও বোতলজাত পানি কোথায় যায়? টিআইবির গবেষণায় অপচয়ের কথা বলা হয়েছে। কিন্তু রাজস্ব আয় বৃদ্ধির মাধ্যমে বছরে ৪০০ কোটি টাকা এবং সিস্টেম লস কমানোর মাধ্যমে আরও ২০০ কোটি টাকা অতিরিক্ত আয় করছে ওয়াসা। বিষয়টি টিআইবির গবেষণায় উল্লেখ করা হয়নি।’

পানি ফুটিয়ে নয়, শুধু শুধু চুলা জ্বালিয়ে গ্যাসের অপচয় করা হয় বলেও দাবি করেন তাকসিম এ খান। তিনি বলেন, ‘টিআইবির গবেষণায় ওয়াসার পানির নিম্ন মানের এই তথ্য সঠিক নয়। ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয়। কোনো ধরনের ল্যাব টেস্ট না করেই টিআইবি এ মন্তব্য করেছে।’

ঢাকা ওয়াসার এমডি আরও বলেন, ‘গত ১১ থেকে ১৯ নভেম্বর ঢাকার বিভিন্ন এলাকার ২৪৩টি পানির নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এই নমুনা পরীক্ষা করে পানির মান সন্তোষজনক পাওয়া গেছে। তবে মাঝে-মধ্যে কিছু পুরোনো সরবরাহ লাইনে দূষণ পানি পাওয়া যায়, যা দ্রুত সময়ের মধ্যে ঠিক করা হয়।’

advertisement