advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ঝিনাইদহে ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা গাজীপুরে বাসার সামনে খুন

আমাদের সময় ডেস্ক
২১ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২১ এপ্রিল ২০১৯ ০৯:৫৬

গাজীপুরে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বারি) এক নারী কর্মচারীর সরকারি বাসার সামনে খুন হয়েছেন তার স্বামী। ঝিনাইদহে এক ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ ছাড়া ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলে মাকে ও সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় পারিবারিক কলহের জেরে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা করেছেন স্বামী।

এ ছাড়া ফুলবাড়িয়ায় শুক্রবার রাতে নিখোঁজ এক শিশুর লাশ গতকাল সকালে উদ্ধার করা হয়।

প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-গাজীপুর : গাজীপুরে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বারি) বাসায় গত শুক্রবার রাতে খুন হন ব্যবসায়ী আনসারুল হক তালুকদার (৫৫)। তিনি ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার বেতবাড়ী এলাকার মুজিবুর রহমানের ছেলে। বারির কর্মচারী আয়শা সিদ্দিকা তার স্ত্রী। স্ত্রীর নামে বরাদ্দকৃত স্টাফ কোয়ার্টারের গোমতি ভবনের তৃতীয় তলায় সপরিবারে থাকতেন।

নিহতের ছেলে মাহিন জানান, তার বোন জান্নাতুল ফেরদৌস আরবিনও বারির একজন কর্মচারী (অফিস সহকারী)। বারির আবাসিক এলাকার সি-টাইপের বাসায় থাকেন তিনি। কয়েক মাস আগে আরবিন মাতৃত্বকালীন ছুটি নিয়ে গ্রামের বাড়ি চলে যান। মাকে নিয়ে বোনের বাসায় থাকেন মাহিন। শুক্রবার রাতে ওই বাসায় রাতের খাবার সেরে রাত পৌনে ১১টার দিকে আনসারুল বারির গোমতি ভবনের উদ্দেশে রওনা হন। পরে একটি টেলিফোন থেকে খবর মাহিন খবর পান, তার বাবা গোমতি ভবনের নিচে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক প্রণয় ভূষণ দাস জানান, আনসারুলকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছিল। তার বুকে ও পেটে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। গাজীপুর সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শেখ মিজানুর রহমান জানান, বারির ভেতরে ক্যান্টিন ডাকে নিয়ে পারিচালনা করেন আনসারুল হকের মেয়ের জামাই মো. আলমগীর। আনসারুল মাঝে মধ্যে ওই কেন্টিনে বসতেন এবং তদারকি করতেন। খুনের ঘটনা উদ্ঘাটনে তদন্ত চলছে। শনিবার দুপুর পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি এবং মামলা হয়নি।

ঝিনাইদহ : সদর উপজেলার মধুহাটি ইউনিয়নের কুবিরখালি মাঠ এলাকায় জামিরুল ইসলাম (৪০) নামের এক হার্ডওয়ার ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। গত শুক্রবার রাত ৯ টার দিকে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। জামিরুল ইসলাম সদর উপজেলার কুবিরখালি গ্রামের মজনুর রহমানের ছেলে।

ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিলু মিয়া বিশ্বাস জানান, রাত ৯ টার দিকে জামিরুল ইসলাম জিয়ানগর নগর বাজার থেকে মিলন হোসেনের সাথে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। কুবিরখালি গ্রামের খালপাড়ে আসলে দুর্বৃত্তরা রাস্তায় কলাগাছ ফেলে তাদের গতিরোধ করে। পরে জামিরুলের মাথায় এবং বুকে গুলি করে হত্যা করে পালিয়ে যায়। ফুলবাড়িয়া : ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের যমুনারপাড় এলাকায় ছেলে আলম মিয়ার হাতে আম্বিয়া খাতুন (৬০) খুন হন। গতকাল শনিবার ভোর ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে এবং ঘাতককে আটক করে।

স্থানীয় মো. আব্দুর রহমান জানান, একই বাড়ির এক নিকটাত্মীয় বিদেশে যাওয়ার কারণে গতকাল ভোর ৩টার দিকে অনেকের মতো আলম ও তার মা আম্বিয়া ঘুম থেকে ওঠেন। ৪টার দিকে বাড়ি থেকে প্রবাসী রওনা হলে ১০০ গজ যাওয়ার আগেই আলম তার কাছে থাকা আকাশমণির লাকড়ি দিয়ে মায়ের আকস্মিক আঘাত করে। এতে মা ঘটনাস্থলেই নিহত হন।

থানা অফিসার ইনচার্জ শেখ কবিরুল ইসলাম জানান, স্থানীয়রা বলছেন ঘাতক মানসিক ভারসাম্যহীন। তবে তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কিছুই বলা যাচ্ছে না। এদিকে উপজেলার বরুকা নামাপাড়া আয়মন নদীর পাড় থেকে সাইদুল ইসলাম সিফাত (১০) নামে এক শিশুর ক্ষত-বিক্ষত লাশ গতকাল শনিবার সকাল ১০টার দিকে পুলিশ উদ্ধার করে। সিফাত ওই গ্রামের ভ্যানচালক এনামুল হকের ছেলে। শুক্রবার রাতে সিফাত মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে নিখোঁজ হয়।

উল্লাপাড়া : পারিবারিক কলহের জেরে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বানিয়াকৈর গ্রামে স্ত্রী শাহানাজ পারভীনকে পিটিয়ে হত্যা করেন স্বামী সিরাজুল ইসলাম। গত শুক্রবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। প্রায় সাত বছর আগে সিরাজুলের সঙ্গে শাহানাজের বিয়ে হয়। তাদের একটি শিশুসন্তান রয়েছে। তড়িঘড়ি দাফনের চেষ্টা করলে পুলিশ সন্ধ্যার দিকে লাশ থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় শাহানাজের বাবা আব্দুস ছাত্তার উল্লাপাড়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।