advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বিশ্বকাপ ঘিরে সৌম্যের স্বপ্ন

২১ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০
আপডেট: ২১ এপ্রিল ২০১৯ ০০:৪৪

ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে নিজের ছায়া হয়ে আছেন। ইনিংসকে বড় করতে না পারার যন্ত্রণায় তিনি নিজেও কাতর। অফফর্মের বৃত্ত থেকে বের হওয়ার জন্য কঠোর পরিশ্রম করছেন। প্রিমিয়ার লিগে একটা বড় ইনিংস খেলতে পারলে নিজের হারানো আত্মবিশ্বাস ফিরে পাবেন বলে মনে করছেন আবাহনীর বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যান। তার বিশ্বকাপ দলে থাকা নিয়ে কিছু সমর্থক প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি মাঠেই ব্যাট হাতে সব সমালোচনার জবাব দিতে চান। এ ছাড়া ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী ব্যাটসম্যান হওয়ারও স্বপ্ন দেখছেন। গতকাল বিশ্বকাপ ছাড়াও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সুসান্ত উৎসব-এর সঙ্গে খোলামেলা কথা বলেছেন জাতীয় দলের ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার। বিস্তারিতÑ আমাদের সময়

বিশ্বকাপ দলে আছেন। কেমন লাগছে?
সৌম্য সরকার : ভালো। বিশ্বকাপ দলে আছি। অবশ্যই ভালো লাগছে। আমাদের সময় : ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে সেভাবে রান পাচ্ছেন না। ইনিংস বড় হচ্ছে না।

বিশ্বকাপের মতো বড় টুর্নামেন্টের আগে অফফর্মে থাকাটা একজন ব্যাটসম্যানের জন্য নিশ্চয় হতাশা?
সৌম্য সরকার : প্রিমিয়ার লিগ খারাপ যাচ্ছে। আমি বুঝতে পারছি। সবাই দেখছে। দুটো ম্যাচ আছে। চেষ্টা করব ভালো কিছু করার যেন আয়ারল্যান্ড ও বিশ্বকাপে ভালো আত্মবিশ্বাস নিয়ে যেতে পারি।

খারাপ সময় কাটিয়ে ওঠার জন্য কী ধরনের কাজ করছেন?
সৌম্য সরকার : এক্সট্রা কিছু কাজ করছি। এক্সট্রা প্র্যাকটিস। মেন্টালি কিছু কাজ করা হচ্ছে। হয়তো সময়টা খারাপ যাচ্ছে। চিন্তা করছি কেন এমনটা হচ্ছে। চেষ্টা করছি নিজেকে মানসিকভাবে শক্ত রাখতে। আমার বিশ্বাস, খারাপ সময় কাটিয়ে উঠতে পারব। একটা বড় ইনিংস খেলতে পারলেই হারানো আত্মবিশ্বাস ফিরে পাব।

আপনাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনা হয়। নেতিবাচক কথাবার্তা একজন খেলোয়াড়ের মানসিকতায় কতটা প্রভাব ফেলে?
সৌম্য সরকার : ফেসবুক ব্যবহার করি বলে যে এগুলো সব দেখি তা ঠিক না। আমি এগুলো দেখি না। এখন অধিকাংশই ফেক নিউজ। সবাই ফোকাসের জন্য অনেক ধরনের নিউজ বা কাথাবার্তা লেখে। চেষ্টা করি ফেসবুক থেকে দূরে থাকার জন্য আর এমন পোস্ট না পড়ার জন্য।

আপনি একজন হার্ড হিটার। পাশাপাশি বোলিংও করতে পারেন। সম্প্রতি ব্যাটিংয়ের চেয়ে বোলিংয়েই বেশি ভালো করছেন। কী বলবেন?
সৌম্য সরকার : প্রিমিয়ার লিগে ব্যাটিংয়ে সেভাবে সফল হতে পারছি না। বোলিং দিয়ে ঘাটতি পুষিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছি; যাতে করে দিনশেষে একটা কিছু আমার পক্ষে থাকে। এ জন্য বোলিংয়ের দিকেও মনোযোগ দিচ্ছি। যদি দলের প্রয়োজন পড়ে তা হলে যেন প্রথম দিন থেকেই বল হাতে অবদান রাখতে পারি।

আপনার এই খারাপ সময়ে সিনিয়র কোনো খেলোয়াড়কে কি পাশে পাচ্ছেন? কারও সঙ্গে এ বিষয়ে কথা হয়?
সৌম্য সরকার : সব সময় কথা হয়। ক্রিকেটে বড় কথা হচ্ছে বিশ্বাস করা। কার কথা আপনি নেবেন, কার কথা নেবেন না। আমার যার কথা ভালো লাগে বা যার সঙ্গে কথা বলে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি, তার সঙ্গে কথা বলি। তবে নাম বলতে চাচ্ছি না।

আপনি ওপেনিং এবং ওয়ান ডাউন দুই পজিশনেই খেলেছেন। নিচের দিকেও ব্যাট করতে দেখা গেছে। আপনার পছন্দের কোনো ব্যাটিং পজিশন আছে কিনা?
সৌম্য সরকার : আমি এগুলো নিয়ে চিন্তা করছি না। এখনো প্রিমিয়ার লিগের দুটো ম্যাচ আছে। এর পর আয়ারল্যান্ড সফর আছে। দলের প্রয়োজনে যে কোনো পজিশনে ব্যাট করতে রাজি আছি। ব্যাট হাতে আমি যেন দলকে বড় একটা স্কোর এনে দিতে পারি সে চেষ্টা করব।

বিশ্বকাপে আপনার নিজের ব্যক্তিগত কোনো লক্ষ্য নির্ধারণ করেছেন কিনা?
সৌম্য সরকার : অবশ্যই। ভালো কিছু করার চেষ্টা করব। ওই যে বলছিলেন সমালোচনা হচ্ছে আমাকে নিয়ে। আমি এমন কিছু করতে চাই যেন যারা এখন সমালোচনা করছে তারাই আমাকে নিয়ে ভালো ভালো নিউজ করে। কথা লেখে। পোস্ট দেয়। সমালোচকরাই যেন আমাকে ভালো বলে।

বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সর্বোচ্চ রান করার কোনো লক্ষ্য আপনার থাকবে কিনা?
সৌম্য সরকার : এটা তো সব সময়ই। শুধু বাংলাদেশ না, বিশ্বকাপেরই হাই স্কোরার হওয়ার স্বপ্ন দেখি। আমি আমার সেরাটা উজাড় করে দেওয়ার চেষ্টা করব। বাকিটা সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছা।

এবার একটু অন্য প্রসঙ্গে কথা বলি। বিশ্বকাপ দলে থাকা সাব্বির, মোস্তাফিজ, মিরাজের পর লিটন দাস বিয়ের পিঁড়িতে বসেছেন। বিয়ে নিয়ে আপনি কী ভাবছেন?
সৌম্য সরকার : আপাতত বিয়ে নিয়ে ভাবছি না। সবাইকে জানিয়েই বিয়ের পিঁড়িতে বসব (হাসি)। এখন আমার ভাবনায় শুধুই ক্রিকেট।