advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বিদেশে পাঠানোর নামে ৮ কোটি টাকা আত্মসাৎ

চট্টগ্রাম ব্যুরো
২১ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২১ এপ্রিল ২০১৯ ০৯:৩৯

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পাঠানোর কথা বলে প্রায় ১৫০ জনের কাছ থেকে আট কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে দুই ভাইসহ তিন প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তারা চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ‘গ্লোবাল ইমিগ্রেশন অ্যান্ড এডুকেশন সেন্টার’ নামে প্রতিষ্ঠান খুলে প্রতারণা করে আসছিল।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা থেকে গত শুক্রবার রাতে প্রতারক অনিক ইসলাম মুন্না (৩৪) ও তার ভাই রফিকুজ্জামান খান রনি (২৭) এবং খন্দকার আবুল হাসান সুমনকে (৩২) গ্রেপ্তার করে। মুন্না ও রনি পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের মৃত আবদুর রউফ খানের ছেলে।

সুমন বাগেরহাট সদর উপজেলার কলাবাড়িয়া গ্রামের খন্দকার আবদুল মুহিতের ছেলে। তারা ঢাকা মহানগরীর ভাটারা থানার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার আই-ব্লকের ৭ নম্বর সড়কের ১৪১ নম্বর বাড়িতে থাকেন। চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (পশ্চিম) এএএম হুমায়ুন কবির জানান, গ্রেপ্তারকৃতরা চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষা ও চাকরির ভিসা ম্যানেজ করে দেওয়ার কথা বলে কমপক্ষে ১০০ থেকে ১৫০ জনের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। এ পর্যন্ত তাদের আট কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার তথ্য পাওয়া গেছে। চট্টগ্রামের ডবলমুরিং থানায় দায়ের হওয়া একটি মামলা তদন্ত করতে গিয়ে এ তথ্য পাওয়া যায়।

তারা একেক জেলায় গিয়ে একেক নামে প্রতিষ্ঠান খোলেন। চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে তারা ‘ফরচুন গ্লোবাল ইমিগ্রেশন অ্যান্ড এডুকেশন সেন্টার’ নামে প্রতিষ্ঠান খুলেছিল। কয়েক মাস আগে সেটি বন্ধ করে উধাও হয়ে যায়। এর পর ডবলমুরিং থানায় মামলা হলে তদন্তে নামে গোয়েন্দা পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে ডবলমুরিং ও চান্দগাঁও, পিরোজপুরের নাজিরপুর, খুলনা সদর এবং ঢাকার বনানী থানায় একটি করে মামলার তথ্য পাওয়া গেছে। পুলিশ সূত্র জানায়, তিনজনই সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের সদস্য। ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার সময় তারা ভুয়া ঠিকানা, ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র ও ভুয়া পাসপোর্ট ব্যবহার করে।