advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার বিরুদ্ধে এক ব্যক্তির পা কেটে নেওয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক,ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও বাঞ্ছারামপুর প্রতিনিধি
২১ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২১ এপ্রিল ২০১৯ ১০:০০

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় কালা মিয়া নামের এক ব্যক্তির পা কেটে নেওয়া হয়েছে। এছাড়া কালা মিয়ার ছেলে বিপ্লব মিয়ার দুই পায়ের রগও কেটে দেওয়া হয়। রূপসদী গ্রামে সংঘটিত ওই ঘটনায় অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবুল বাশারের বিরুদ্ধে। তাদের মধ্যে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছে। কালা মিয়া ও স্থানীয়রা এ অভিযোগ করলেও আবুল বাশার তা অস্বীকার করেছেন। ফলে প্রশ্ন উঠেছে কালা মিয়ার পা কাটল কে।

আহত কালা মিয়া ও স্থানীয়রা জানান, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবুল বাশারের সঙ্গে কালা মিয়ার বিরোধ চলে আসছে দীর্ঘদিন। এ বিরোধের জেরে শুক্রবার বিকালে আবুল বাশার ও সহযোগীরা কালা মিয়া এবং তার ছেলে বিপ্লব মিয়াকে (১৯) বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে টেঁটাবিদ্ধ করেন। পরে কালা মিয়া মাটিতে লুটিয়ে পড়লে ধারালো দা দিয়ে তার ডান পা হাঁটু থেকে বিচ্ছিন্ন করে নিয়ে যায়। এ সময় কালা মিয়ার ছেলে বিপ্লবের দুই পায়ের রগও কেটে দেয় আবুল বাশার ও তার সহযোগীরা। পরে তাদের উদ্ধার করে প্রথমে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের ঢাকায় স্থানান্তরের নির্দেশ দেয়।

এ খবর পেয়ে কেটে নেওয়া পা উদ্ধারে অভিযান শুরু করেছে বাঞ্ছারামপুর থানা পুলিশ। এ বিষয়ে অভিযোগ অস্বীকার করে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি আবুল বাশার বলেন, আমি ঢাকায় অবস্থান করছি। যতটুকু শুনেছি কালা মিয়া আমাদের গ্রামের এক বাড়িতে চুরি করতে গিয়েছিল। সেই বাড়ির লোকজন ও এলাকাবাসী ধরে তাকে গণপিটুনি দিয়েছে। পরবর্তী সময়ে কী হয়েছে আমি জানি না।

বাঞ্ছারামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সালাহ্ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, কালা মিয়া চুরি ও ডাকাতির সঙ্গে জড়িত। তার ছেলে বিপ্লব মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। আমরা যতটুকু জানতে পেরেছি এলাকার সংক্ষুব্ধ মানুষরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত করে এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।