advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

প্রতিবাদসভায় আমীর খসরু বিএনপির নির্বাচিতরা শপথ নিলে তা যাবে জনগণের প্রত্যাশার বিরুদ্ধে

নিজস^ প্রতিবেদক
২১ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২১ এপ্রিল ২০১৯ ১০:০৪

বিএনপির নির্বাচিতরা শপথ নিলে তা জনগণের প্রত্যাশার বিরুদ্ধে যাওয়া হবে বলে মন্তব্য করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। ৩০ এপ্রিলের মধ্যে বিএনপির ৬ নির্বাচিত সদস্য শপথ নেওয়া নিয়ে নানা গুঞ্জনের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল দুপুরে এক প্রতিবাদসভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

আমীর খসরু বলেন, যে নির্বাচন (একাদশ সংসদ নির্বাচন) বাংলাদেশের মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছে, যে নির্বাচন বিশ্বের সব গণতন্ত্রকামী দেশগুলো প্রত্যাখ্যান করেছে, যে নির্বাচন ইনভেস্টিগেশন করতে বলা হয়েছে। এখনো জাতিসংঘ থেকে শুরু হয়ে মার্কিন রাষ্ট্রপ্রধান বলেছেন এ নির্বাচন তদন্ত করতে। যেখানে নির্বাচনই হয়নি সেখানে বিএনপির ৬ ব্যক্তি যাদের বলা হচ্ছে তারা কীভাবে সংসদে যাবে? এটা তো জাতির সাথে, জনগণের সাথে, বাংলাদেশের মানুষের যে প্রত্যাশা তার বিরুদ্ধে যাওয়া হবে। এটা আলোচনায় আসতে পারে কীভাবে? জাতীয় প্রেসক্লাবে নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরামের উদ্যোগে খালেদা জিয়া, সৈয়দ মেহেদি আহমেদ রুমি ও হাবিব উন নবী খান সোহেলের মুক্তির দাবিতে প্রতিবাদসভায় এ কথা বলা হয়।

এতে সংগঠনের উপদেষ্টা সাঈদ আহমেদ আসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের পরিচালনায় আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, বগুড়া-৪ আসনের বিএনপির নির্বাচিত সদস্য মো. মোশাররফ হোসেন, কারাবন্দি সৈয়দ মেহেদি আহমেদ রুমির মেয়ে সৈয়দ ফাহিমা রুমী, ঢাকা মহানগরের ফরিদউদ্দিন, কৃষক দলের খলিলুর রহমান ভিপি ইব্রাহিম প্রমুখ। সংসদে শপথগ্রহণের সঙ্গে কারাবন্দি খালেদা জিয়ার মুক্তির কোনো সম্পর্ক নেই উল্লেখ করে আমীর খসরু বলেন, এর সাথে দেশনেত্রীর মুক্তির কী সম্পর্ক। এই আলোচনা কীভাবে আসতে পারে।

এ বিষয়গুলো পরিষ্কার হওয়া দরকার। জাতিকে আর কত বিভ্রান্ত করা যাবে। আমরা বিভ্রান্ত করতে চাই না। সরকারের তো বিভ্রান্ত করা ছাড়া উপায়ও নেই। আর তারা যে জায়গায় গিয়েছে তাদের সার্বক্ষণিকভাবে দেশে একটি বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতেই হয়। সার্বক্ষণিক বিভ্রান্ত সৃষ্টি করা গেলে জনগণের মধ্যে যে রাগ-ক্ষোভ কাজ করছে সেটা লঘু চাপ থেকে উচ্চ চাপ থেকে সুনামির পর্যায়ে না যায় সেজন্য তাদের বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতেই হবে। আমরা জনগণের পক্ষে ছিলাম, আছি এবং থাকব। জনগণের ভোটাধিকার ফিরে পাওয়ার যে আন্দোলন চলছে তা অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

একাদশ নির্বাচনে বগুড়া-৪ আসনের বিএনপির নির্বাচিত সদস্য মো. মোশাররফ হোসেন বলেন, আমি কথা দিচ্ছি যদি দলের নির্দেশনা আসে, আপনারা সংসদে যান তা হলে সংসদে যাব। যদি নির্দেশনা না আসে আমি সংসদে যাব না ম্যাডামের মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত।