advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

জ্বালানি খাতে অংশীদারত্বে সম্মত বাংলাদেশ-ব্রুনাই

আমাদের সময় ডেস্ক
২৪ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৪ এপ্রিল ২০১৯ ০৯:০৪
advertisement

বাংলাদেশ ও ব্রুনাই জ্বালানি খাতে সমন্বিত সহযোগিতার সম্ভাবনা কাজে লাগাতে সম্মত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার এক যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির স্বার্থে ক্রমবর্ধমান জ্বালানি চাহিদার জোগান দিতে বাংলাদেশে তরল প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহসহ সরকার-টু-সরকার (জিটুজি) চুক্তির আওতায় দুই দেশ জ্বালানি খাতে সমন্বিত সহযোগিতার সম্ভাবনা কাজে লাগাতে সম্মত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তিনদিনের ব্রুনাই সফরে দুই দেশ এ বিষয়ে সম্মত হয়। খবর : বাসস।

দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের ৩৫তম বার্ষিকীতে সুলতান বলকিয়াহর আমন্ত্রণে ব্রুনাই দারুসসালাম যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনদিনের সরকারি সফরে গতকাল দেশে ফেরেন তিনি। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইট প্রধানমন্ত্রী এবং তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

এর আগে স্থানীয় সময় সোয়া ৫টায় বন্দর সেরি বেগাবানের ব্রুনাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করে ফ্লাইটটি। ব্রুনাইয়ের প্রাথমিক সম্পদ এবং পর্যটনবিষয়ক মন্ত্রী দাতো সেরি সেথিয়া আওয়াঙ্গ হাজি আলী বিন হাজি আপং এবং ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশের হাইকমিশনার এয়ার ভাইস মার্শাল (অব) মাহমুদ হুসেইন বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান। সেখানে তাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়।

যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, পেট্রোকেমিক্যাল, সমুদ্রে তেল ও গ্যাস অনুসন্ধান, কারিগরি সহযোগিতা ও সক্ষমতা উন্নয়নের মতো খাতে দুই দেশের সরকারি-বেসরকারি খাতের সমন্বিত সহযোগিতায় বাণিজ্য ও বিনিয়োগের সুযোগ কাজে লাগাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ব্রুনাইয়ের সুলতান হাজি হাসানাল বলকিয়াহ সম্মত হয়েছেন। দুই নেতা বিনিয়োগের সম্ভাবনার বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছেন উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, দুই দেশের পারস্পরিক স্বার্থে বিশেষ করে খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, জ্বালানি, আইসিটি, জাহাজ নির্মাণ, ম্যানুফ্যাকচারিং, পর্যটন অবকাঠামো, ব্লু ইকোনমি এবং পাট শিল্পের মতো খাতে পারস্পরিক বিনিয়োগ উৎসাহিত করতে তারা সম্মত হয়েছেন।

বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক জোনের সুযোগ নিয়ে বিশ্বব্যাপী ‘হালাল ফুড মার্কেটে’ প্রবেশের সুযোগ কাজে লাগাতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে ব্রুনাই। স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী প্রয়োজনীয় দক্ষতা উন্নয়নে স্বাস্থ্য খাতে সহযোগিতা আরও জোরদার করবে উভয় দেশ। বিশেষ করে প্রশিক্ষণ, হেলথ কেয়ার প্রফেশনাল নিয়োগ, ওষুধ উৎপাদন ও বাণিজ্যের পাশাপাশি বিশেষায়িত স্বাস্থ্যসেবায় সহযোগিতায় সম্মত হয়েছে। দ্ব

পক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগে কার্যকর সুযোগ-সুবিধা দিতে আর্থিক কার্যক্রম জোরদারে দুই দেশের আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার প্রতি উভয় পক্ষ জোর দিয়েছে। অভিন্ন স্বার্থ এবং সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, পরিবেশগত সুরক্ষা ও টেকসই উন্নয়নসহ বিভিন্ন ইস্যুতে জাতিসংঘ, ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি), কমনওয়েলথ এবং আসিয়ান আঞ্চলিক ফোরামসহ আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সহযোগিতা আরও জোরদারে উভয় পক্ষ সম্মত হয়েছে।

আসিয়ানের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে অব্যাহত চেষ্টার প্রতি দুই নেতা সমর্থন ব্যক্ত করেন এবং এতে পারস্পরিক লাভবান হওয়ার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে বলে তারা সম্মত হয়েছেন। বিবৃতিতে বলা হয়, অস্থায়ীভাবে আশ্রয় দেওয়া মিয়ানমারের বাস্তুচ্যুত ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশের মানবিক সহযোগিতা প্রদান এবং তাদের প্রত্যাবাসন উদ্যোগে ব্রুনাই সমর্থন দিয়েছে।

চ্যান্সেরি ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন গতকাল ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশনের নতুন চ্যান্সেরি ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ব্রুনাইয়ের রাজধানীর কূটনৈতিক এলাকা জালান কেবানজাসানে এ ভবন হচ্ছে। অনুষ্ঠানে সফরসঙ্গীসহ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সেখানে এক বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৃদ্ধিতে বিশেষ অবদানের জন্য প্রবাসী বাংলাদেশিদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, প্রবাসীদের কল্যাণ নিশ্চিত করা তার সরকারের দায়িত্ব। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৃদ্ধিতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিশেষ অবদান রয়েছে। বিশেষ করে এ ক্ষেত্রে শ্রমিকদের অবদান অনেক বেশি। এ জন্য তাদের সুযোগ-সুবিধার বিষয়টি দেখা আমাদের দায়িত্ব।

তিনি আরও বলেন, প্রবাসীরা তাদের অবস্থানকারী দেশগুলোর অবকাঠামো ও অর্থনৈতিক উন্নয়নেও ভূমিকা রাখছে। তিনি বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশির সংখ্যা বেশি এমন সব দেশে নিজস্ব মিশন নির্মাণে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে প্রতিটি দেশেই বাংলাদেশের নিজস্ব মিশন ভবন নির্মিত হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রবাসীদের সংখ্যা বেশি এমন দেশগুলোয় তাদের ছেলেমেয়েদের যথাযথ শিক্ষার জন্য অন্তত একটি করে বাংলাদেশি স্কুল প্রতিষ্ঠার নির্দেশ ইতোমধ্যে দেওয়া হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন ও ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশের হাইকমিশনার এয়ার ভাইস মার্শাল (অব) মাহমুদ হুসেইন অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

advertisement