advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সৌম্যই প্রথম

ক্রীড়া প্রতিবেদক
২৪ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৪ এপ্রিল ২০১৯ ০৮:২৮
advertisement

এবার ডাবল সেঞ্চুরির স্বাদ পেলেন সৌম্য সরকার। বাঁ-হাতি এই ব্যাটসম্যান আপাতত নির্ভার। রান পেয়েছেন। হারানো আত্মবিশ্বাসও ফিরেছে। সমালোচনার জবাবটাও দিয়েছেন মাঠেই! নিউজিল্যান্ড সফর শেষে দেশে ফেরার পর ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগের ম্যাচ খেলেছেন সৌম্য সরকার। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি। প্রথম ১১ ম্যাচে ছিল না কোনো ফিফটি। রান না পাওয়ায় তার বিশ্বকাপ দলে থাকা নিয়েও উঠেছিল প্রশ্ন। আবাহনীর ওপেনার নিজেও হতাশ ছিলেন। বলেছেন, উইকেটে থিতু হয়ে ইনিংসকে যতটা পারা যায় বড় করার চেষ্টা করছি। রূপগঞ্জের বিপক্ষে গত রবিবারের ম্যাচে প্রথমবার হাসে সৌম্যর ব্যাট। শতরানের (১০৬) চোখজুড়ানো ইনিংস খেলেন আবাহনীর ওপেনার। গতকাল প্রিমিয়ার লিগের শেষ ম্যাচটি ছিল মহাগুরুত্বপূর্ণ। শিরোপানির্ধারণী এই ম্যাচে আরও উজ্জ্বল সৌম্য। বিকেএসপিতে শেখ জামালের বিপক্ষে ১৪৯ বলে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকান তিনি। দলকে জয়ী করেই মাঠ ছাড়েন আবাহনীর ওপেনার। হয়েছেন ম্যাচসেরাও। ব্যাটে আলো ছড়ানোর ম্যাচে গলায় রেকর্ডের মালা পড়েছেন সৌম্য সরকার। লিস্ট-এ ক্রিকেটে বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরি (২০৮*) করেছেন তিনি। গড়েছেন সবচেয়ে বেশি ছক্কার (১৬) রেকর্ড। ৩১৭/৯ রান তাড়ায় উদ্বোধনী জুটিতে জহুরুল ইসলাম অমির সঙ্গে ৪৫.৪ ওভারে ৩১২ রান স্কোরকার্ডে যোগ করেন সৌম্য। এটি লিস্ট-এ ক্রিকেটে যে কোনো উইকেটেই বাংলাদেশের সফলতম জুটি। বিকেএসপিতে রুদ্রমূর্তিই ধারণ করেছিলেন সৌম্য। প্রথম ফিফটি করেন ৫২ বলে। শুরুটা মন্থরগতির হলেও এর পর খোলস থেকে বেরিয়ে আসেন। ৭৮ বলে তুলে নেন সেঞ্চুরি। ১০৪ বলে ছুঁয়েছেন দেড়শ। ১৪৯ বলে ডাবল সেঞ্চুরি। আবাহনীর হয়ে ১৩ ম্যাচ খেলা সৌম্যর মোট রান ৫১১। গড় ৪২.৫৮। ম্যাচটি ১৭ বল হাতে রেখে ৯ উইকেটে জিতে নিয়েছে আবাহনী। বিশ্বকাপে সৌম্যকে ঘিরে অনেক আশা। তিনি নিজেও তা জানেন। তাই তো অফফর্মের বৃত্ত থেকে বের হতে মরিয়া ছিলেন। অবশেষে হারানো ছন্দ ফিরে পেয়েছেন এই বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান। সৌম্যর দিনে বৃথা গেছে তানভীর হায়দারের সেঞ্চুরি। ছয়ে নেমে শেষ জামালের এই ব্যাটসম্যান ১১৫ বলে অপরাজিত ১৩২ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। আর তাতেই দলীয় স্কোরকার্ডটা হৃষ্টপুষ্ট হয়েছিল শেখ জামালের। তবে বড় স্কোর গড়েও হারের তেতো স্বাদ নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে নুরুল হাসানের দলকে। জহুরুল ইসলাম লিগে তৃতীয় সেঞ্চুরি (১২৮ বলে ১০০) করেছেন। তুলির শেষ আঁচড় দিয়েছেন সৌম্য। তার ১৫৩ বলের ইনিংসটি সাজানো ছিল ১৪টি চার ও ১৬টি ছক্কায়। স্ট্রাইক রেট ১৩৫.৯৪।

advertisement