advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

গ্রামীণফোনের ২৮০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৪ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৪ এপ্রিল ২০১৯ ০৯:৫২
advertisement
advertisement

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানি গ্রামীণফোন লিমিটেড শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ২৮০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। গতকাল রাজধানীর বসুন্ধরার ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটিতে (আইসিসিবি) অনুষ্ঠিত কোম্পানিটির ২২তম বার্ষিক সাধারণসভায় (এজিএম) এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এজিএমে ২০১৮ সালের জন্য ১৫৫ শতাংশ চূড়ান্ত লভ্যাংশ (ক্যাশ) এবং ১২৫ শতাংশ অন্তর্বর্তীকালীন লভ্যাংশের (ক্যাশ) অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। ফলে সর্বমোট লভ্যাংশ দাঁড়িয়েছে পরিশোধিত মূলধনের (শেয়ারপ্রতি মূল্য ২৮ টাকা) ২৮০ শতাংশ। বরাবরের মতো প্রতিষ্ঠানটি ফাস্ট-ট্র্যাক অনলাইন পদ্ধতিতে লভ্যাংশ বণ্টনের বিষয়টি নিশ্চিত করবে। গ্রামীণফোনের পরিচালনা পর্ষদের প্রধান পিটার বি. ফারবার্গ এবং গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাইকেল ফোলিসহ পরিচালনা পর্ষদের সদস্য এবং প্রতিষ্ঠানটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

এবারের বার্ষিক সাধারণসভা পরিচালনা করেন প্রতিষ্ঠানটির কোম্পানি সেক্রেটারি এসএম ইমদাদুল হক। সভায় গ্রামীণফোনের পরিচালনা পর্ষদের প্রধান বলেন, প্রতিযোগিতাসংক্রান্ত যে কোনো নীতিমালা বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা আইন এবং আন্তর্জাতিকভাবে প্রচলিত পদ্ধতি অনুযায়ী হওয়া উচিত বলে মনে করে গ্রামীণফোন। এসএমপি নীতিমালা এমন হওয়া উচিত না, যার কারণে যে কোনো প্রতিষ্ঠানের প্রবৃদ্ধি, উদ্ভাবন ও বিনিয়োগের সুযোগ কমে যায়।

সাম্প্রতিক সময় অডিটের মাধ্যমে গ্রামীণফোনের কাছ থেকে ১২ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা সরকারের পাওনা বিষয়ে গ্রামীণফোনের পরিচালনা পর্ষদের প্রধান আরও বলেন, এ ধরনের দাবি আইনগতভাবে ভিত্তিহীন। এ দাবি প্রত্যাহার করে সৌহার্দপূর্ণ সমাধানের লক্ষ্যে আলোচনায় বসতে বিটিআরসির প্রতি আবেদন জানিয়েছি আমরা।

advertisement