advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় নিহত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৬ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৬ এপ্রিল ২০১৯ ০০:৫৪

রাজধানীতে সড়কে আবার প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর। গতকাল বৃহস্পতিবার শেরেবাংলা নগরে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের পাশের সড়কে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় নিহত হন ফাহমিদা হক লাবণ্য (২১)। তিনি ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে প্রাণ হারান তিনি। এ ছাড়া গতকাল সড়ক দুর্ঘটনায় বান্দরবান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, টাঙ্গাইল, পটুয়াখালী, নওগাঁ ও রাঙামাটিতে ছয়জন নিহত হয়েছেন। গত মাসেই রাজধানীর সড়কে বাসচাপায় প্রাণ হারান বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের শিক্ষার্থী আবরার আহমেদ চৌধুরী। এর পর ব্যাপক বিক্ষোভ করেন সহপাঠীরা। গতকাল দুপুরে রাইড শেয়ারিংয়ের মোটরসাইকেলে করে বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে দুর্ঘটনায় পড়েন লাবণ্য। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ শহীদ সোহরাওয়ার্দী

হাসপাতাল
মর্গে পাঠানো হয়েছে। রাতে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মোটসাইকেল চালক সুমন ও ঘটনার জন্য দায়ী পরিবহনের কাউকেই খুঁজে পায়নি পুলিশ। লাবণ্যর বাবার নাম এমদাদুল হক। শ্যামলীর ৩ নম্বর সড়কের ৩৩ নম্বর বাসায় থাকেন তারা। তাদের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের ফুলপুরের হরিপুরে।
লাবণ্যের মৃত্যুর খবরে সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ছুটে আসেন তার স্বজনরা। মর্গের সামনে ভিড় জমান ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও। এ সময় তারা ঘাতক কাভার্ড ভ্যান চালক ও মোটরসাইকেলের চালকের বিচারের দাবি জানান।
লাবণ্যের বান্ধবী সায়মা জানান, লাবণ্য ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির রোবোটিক্স ক্লাবের পাবলিক রিলেশনস অ্যান্ড রাইটিংস বিভাগের সাধারণ সদস্য ছিলেন। মার্শাল আর্টের রেড বেল্টেরও অধিকারী ছিলেন তিনি। ঘটনাটিকে হত্যা আখ্যা দিয়ে সায়মা বলেন, দ্রুত সময়ের মধ্যে ঘাতক কাভার্ড ভ্যান ও তার চালককে আটক করা না হলে কঠোর আন্দোলনে যাবেন তারা।
শেরেবাংলা নগর থানার ওসি জানে আলম মুনশি জানান, দুপুর ১২টার দিকে লাবণ্যকে বহন করা মোটরসাইকেলকে একটি কাভার্ড ভ্যান ধাক্কা দেয়। এতে ছিটকে পড়ে গুরুতর আহত হন লাবণ্য। তুলনামূলক কম আহত বাইকের চালক তাকে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক লাবণ্যকে মৃত ঘোষণা করেন। দুর্ঘটনার পর কাভার্ড ভ্যান নিয়ে চালক পালিয়ে গেছে। পুলিশ আসার আগেই লাবণ্যকে হাসপাতাল রেখে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে সটকে পড়েন মোটরসাইকেলের চালকও।
বিভিন্ন স্থানে নিহত আরও ৬
এ ছাড়া গতকাল সড়ক দুর্ঘটনায় বান্দরবান, পটুয়াখালী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, টাঙ্গাইল, নওগাঁ ও রাঙামাটিতে ছয়জনের প্রাণহানি ঘটনা ঘটেছে। নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরÑ
রাঙামাটি : শহরের পুলিশ লাইন এলাকায় সকাল ১০টার দিকে পুলিশের ভ্যান চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী বুদ্ধ বিজয় চাকমা নিহত হয়েছেন।
বান্দরবান : আলীকদম উপজেলার কলার ঝিরি এলাকায় গতকাল সকালে পাজেরো গাড়ির ধাক্কায় সাহেদ নামে এক শ্রমিক নিহত হন।
পটুয়াখালী : কলাপাড়া-কুয়াকাটা মহাসড়কের পাইকবাড়ি এলাকায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় আহত স্কুলছাত্র গোলাম রাব্বি (৭) গত মঙ্গলবার রাতে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া : শহরের কালীবাড়ী মোড়-গোকর্ণ সড়কের কাজীপাড়া ঈদগাহ মাঠ এলাকায় গতকাল দুপুরে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকের ধাক্কায় ইয়ামিন (১২) নামে এক মাদ্রাসাছাত্র নিহত হয়।
টাঙ্গাইল : মধুপুরের কাকরাইদ ব্রিজ এলাকায় গতকাল সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশার ধাক্কায় মজনু মিয়া নামে এক ব্যক্তি নিহত হন।
নওগাঁ : রানীনগরে গতকাল বিকালে ট্রাক্টরের ধাক্কায় তাসমিয়া আক্তার নামে এক স্কুলছাত্রী নিহত হয়। সে উপজেলার কামতা জগতপুর গ্রামের উজ্জল হোসেনের মেয়ে।