advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘বনলতা’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী
২৬ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৫ এপ্রিল ২০১৯ ২৩:২৭
রাজশাহী-ঢাকা-রাজশাহী রুটে বিরতিহীন আন্তঃনগর ট্রেন ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এর উদ্বোধন করেন তিনি। তবে ‘বনলতা’ নিয়মিত চলাচল করবে আগামীকাল শনিবার থেকে। উদ্বোধনের আগে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা পবিত্র ঈদ এবং জৈষ্ঠ মাসে রাজশাহীর আমকে মাথায় রেখে বনলতা ট্রেনের উদ্বোধন করলাম।’ ভিডিও কনফারেন্সের অন্যপ্রান্ত রাজশাহীতে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন ও রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বক্তব্য রাখেন। রেলের উন্নয়নের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সারাদেশে রেল নেটওয়ার্ক চালু করতে চাই। রাজধানীর সঙ্গে যোগাযোগটা আরও উন্নত করে দিতে চাই।’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বক্তব্য শেষে জাতীয় পতাকা হাতে নিয়ে নিজে বাঁশি বাজিয়ে বনলতা ট্রেনের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে আন্দোলনের নামে বিএনপি-জামায়াতের ধ্বংসাত্মক কর্মকা-ের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘রেলের নতুন নতুন বগি কিনেছি, সেগুলো আগুন দিয়ে পুড়িয়েছে। বাস কিনেছি, সেগুলো পুড়িয়েছে। তা ছাড়া প্রাইভেট গাড়ি, বাস, ট্রাক, লঞ্চ, এমন কিছু নেই যা অগ্নিসন্ত্রাসের কবলে ধ্বংস হয়নি। সঙ্গে সঙ্গে সাধারণ মানুষের জীবন। ছোট শিশু, নারী, পুরুষ। বাবা দেখেছে চোখের সামনে ছেলে পুড়ে যাচ্ছে, স্ত্রী দেখেছে চোখের সামনে স্বামী পুড়ে যাচ্ছে। এমনিভাবে মা দেখেছে ছেলে বা মেয়ে পুড়ে যাচ্ছেÑ এ রকম ভয়াবহ চিত্র আমরা বাংলাদেশে দেখেছি। আমরা চাই না এ জাতীয় ঘটনা বাংলাদেশে ঘটুক।’ ইসলামকে শান্তির ধর্ম উল্লেখ করে শেখ হাসিনা মসজিদে মসজিদে জুমার খুতবায় জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে মানুষকে সচেতন করার আহ্বান জানান। এ ছাড়া অভিভাবক, শিক্ষক, জনপ্রতিনিধি, সব ধর্মের শিক্ষা গুরুদেরও এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি। রেলের পশ্চিমাঞ্চল মহাব্যবস্থাপক (জিএম) খোন্দকার শহিদুল ইসলাম জানান, ২৭ এপ্রিল থেকে বনলতা এক্সপ্রেস ঢাকা-রাজশাহী রুটে নিয়মিত চলাচল করবে। বনলতা এক্সপ্রেসের বগি নতুন হলেও ইঞ্জিন পুরনো। ২০১৩ সালে ভারত থেকে আমদানি করা ইঞ্জিন দিয়ে চলাচল করবে ট্রেনটি। ঘণ্টায় ট্রেনটির সর্ব্বোচ্চ গতি থাকবে ৯০ থেকে ৯৫ কিলোমিটার। পশ্চিমাঞ্চল রেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বনলতা এক্সপ্রেসে থাকছে ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি করা ১২টি নতুন বগি। এর মধ্যে শোভন চেয়ারের বগি ৭টি, যার আসন সংখ্যা ৬৬৪। এসি বগি ২টি, যার আসন সংখ্যা ১৬০। ১৬ আসনের একটি পাওয়ার কার। দুটি গার্ড ব্যারাকের আসন সংখ্যা ১০৮। সব মিলিয়ে আসন সংখ্যা ৯৪৮। তবে যাত্রীদের জন্য আসন সংখ্যা ৯২৮টি। এ ছাড়া একটি খাবারের বগিও থাকছে। ট্রেনটিতে রয়েছে উড়োজাহাজের মতো বায়োটয়লেট। থাকছে রিক্লেনার চেয়ার, ওয়াইফাই সুবিধা। প্রতিটি বগিতে রয়েছে এলইডি ডিসপ্লে, যার মাধ্যমে স্টেশন ও ভ্রমণের তথ্য প্রদর্শন করা হবে। রাজশাহী থেকে ঢাকায় পৌঁছতে ট্রেনটির সময় লাগবে ৪ ঘণ্টা ৪০ মিনিট। সপ্তাহের শুক্রবার ছাড়া প্রতিদিন সকাল ৭টায় ট্রেনটি রাজশাহী থেকে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করবে। আবার দুপুর দেড়টায় ট্রেনটি ঢাকা থেকে রাজশাহীর উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। বনলতা এক্সপ্রেস উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় নির্মিত ইনস্টিটিউট ও স্থাপনার উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান, রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমামসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অন্যপ্রান্তে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য ডা. মনসুর রহমান, সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার নুর-উর-রহমান, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি একেএম হাফিজ আক্তার, পুলিশ কমিশনার হুমায়ন কবির, জেলা প্রশাসক এসএম আবদুল কাদের, পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ, পশ্চিমাঞ্চল রেলের জিএম খোন্দকার শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।ব্রুনাই সফর নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন আজ : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সদ্যসমাপ্ত ব্রুনাই দারুসসালামে তিন দিনের সরকারি সফর নিয়ে আজ শুক্রবার বিকাল ৪টায় গণভবনে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে তার ব্রুনাই সফরের বিভিন্ন দিক তুলে ধরবেন। ব্রুনাইয়ের সুলতান হাসানাল বলকিয়ার আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী ২১ থেকে ২৩ এপ্রিল ব্রুনাই সফর করেন। চিকিৎসার জন্য তিনজনকে ৬৭ লাখ টাকা দিলেন প্রধানমন্ত্রী : দুজন মুক্তিযোদ্ধাসহ তিনজনকে ৬৭ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদ ভবনে তাদের হাতে অনুদানের চেক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন এ তথ্য জানান। এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধা ও মুজিবনগর সরকারের কর্মচারী মো. ইয়াকুব হোসেন খানকে ২৫ লাখ টাকা এবং মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মোহাম্মদ ইমরানকে ১০ লাখ টাকার চেক অনুদান দেওয়া হয়। তাদের দুজনকেই চিকিৎসার জন্য এই অনুদানের অর্থ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমানের স্ত্রী শিরিনা রহমানকে দেওয়া হয় ৩২ লাখ টাকা। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ক্যানসারে ভুগছেন।