advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সুদের ওপর নতুন করে সুদ আরোপ করা হচ্ছে : অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৬ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৫ এপ্রিল ২০১৯ ২৩:২৭
সুদের ওপর নতুন করে সুদ আরোপ করা হচ্ছে। এত বেশি সুদ দিয়ে কখনই ব্যবসা করা যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, ব্যাংক ঋণে সুদের হার অনেক বেশি। যেন ঋণখেলাপি না হয়, সে জন্য সুদের হার কমিয়ে আনা হবে বলেও জানান তিনি। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর শেরেবাংলানগরে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত প্রাক-বাজেট আলোচনায় তিনি এ কথা বলেন। আলোচনায় অংশ নেন দেশের এনজিও প্রতিনিধি, ইলেকট্রনিক্স ও প্রিন্ট মিডিয়ার সম্পাদক ও সাংবাদিক এবং ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) নেতারা। অর্থমন্ত্রী বলেন, ব্যাংকিং ব্যবস্থার স্থিতিশীলতা ফেরাতে অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি হচ্ছে। অনেকেই খেলাপি ঋণের বিপরীতে কোনো উদ্যোগ নিতে পারছেন না; মামলা করতে পারছেন না। এসব বিষয়ে অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি উদ্যোগ নেবে। আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ব্যবসা করলে লাভ বা লোকসান হতে পারে। যারা লোকসান দেয়, তাদের জন্য কোনো ব্যবস্থা থাকে না। ঋণখেলাপি হওয়ার পরও সব ব্যবসায়ীকে জেলে পাঠালে তো হবে না, সবাইকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে হবে। মন্ত্রী বলেন, মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ যেসব পণ্য বিদেশ থেকে আসবে সেগুলো শতভাগ স্ক্যানিং হয়ে আসবে। আবার যেসব পণ্য রপ্তানি হবে সেগুলোও শতভাগ স্ক্যানিং করা হবে। তা ছাড়া র‌্যানডম স্যাম্পলিংয়ের মাধ্যমে পরিদর্শন করার ব্যবস্থা করা হবে। মন্ত্রী বলেন, দেশের ৪ কোটি মানুষ কর দেওয়ার যোগ্য হলেও কর দেন মাত্র ২৯ লাখ মানুষ। এ জন্য ভ্যালু অ্যাডেড ট্যাক্স নির্ধারণ করা হবে। আলোচনায় প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান বলেন, সংবাদপত্রের পাঠকসংখ্যা ক্রমেই কমে আসছে। এর ফলে আয়ও কমে যাচ্ছে। অনলাইনেও আয় তেমন নেই। সংবাদপত্র প্রকাশে বিভিন্ন খাতে ব্যয় বাড়ছে। ভ্যাট আইনে সংবাদপত্রে ভ্যাট অব্যাহতি দেওয়া আছে। এর পরও এ খাতে ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট আদায় করা হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা এ কর প্রত্যাহার করতে হবে। এ সময় করপোরেট ট্যাক্স কমানোর প্রস্তাব করেন তিনি। সাংবাদিকদের বাড়িভাড়া হিসেবে পরিশোধিত অর্থকেও শতভাগ করমুক্ত রাখার দাবি জানিয়ে মতিউর রহমান বলেন, মূল বেতনের ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ি ভাড়ায় করমুক্ত রয়েছে। বর্তমান বেতন কাঠামোয় সাংবাদিকদের বাড়িভাড়া দেওয়া হয় ৭০ শতাংশ। অবশিষ্ট ২০ শতাংশ বাড়ি ভাড়ায় কর প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি। বাংলাদেশের গণমাধ্যম আর্থিকভাবে খারাপ সময় পার করছে বলে সভায় দাবি করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী। তিনি বলেন, ইলেকট্রনিক টেন্ডারের কারণে সরকারের বিজ্ঞাপনের পরিমাণ কমে এসেছে। বিজ্ঞাপন দেওয়া হলেও এর পরিধি থাকে তুলনামূলক কম। এ অবস্থায় সরকারি বিজ্ঞাপনের দর বাড়ানো ও বিজ্ঞাপনের ভ্যাট অব্যাহতির প্রস্তাব দেন তিনি। ইলেকট্রনিক্স গণমাধ্যমকে শিল্প ঘোষণা করে এ খাতে ব্যাংক ঋণ বাড়ানোর প্রস্তাব দেন তিনি।