advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

প্রতিদিনই তাপমাত্রা বাড়ছে ঘূর্ণিঝড়ের শঙ্কা

মো. মাহফুজুর রহমান
২৬ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৬ এপ্রিল ২০১৯ ০০:৫৭

দাবদাহ ক্রমেই বাড়ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল রাজশাহী জেলায় ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিন রাজধানীর তাপমাত্রা ছিল ৩৭ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আজ শুক্রবারও তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকবে এবং পরবর্তীতে বাড়তে পারে। একই সময়ে সাগরে নিম্নচাপেরও সৃষ্টি হয়ে তা ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। সার্ক আবহাওয়া কেন্দ্র বলছে, বৈশ্বিক কারণে দেশের তাপমাত্রা বাড়বে। বৈরী আচরণ করবে আবহাওয়ার গতি-প্রকৃতি। আবহাওয়ার

অধিদপ্তর বলছে, ২৭ এপ্রিলের আগে দেশে বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। ফলে ওই দিনের আগ পর্যন্ত গরম কমার কোনো সম্ভাবনা নেই। বুধবারের তুলনায় গতকাল তাপমাত্রা বেড়েছে শূন্য দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী বর্তমানে চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লা ও বরিশাল বিভাগসহ ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, রাজশাহী, পাবনা ও সৈয়দপুর অঞ্চলে মৃদু দাবদাহ চলছে। যা আজ পর্যন্ত তা অব্যাহত থাকবে।
আবহাওয়াবিদ বজলুর রশীদ জানান, এই মূহূর্তে দেশে বৃষ্টির কোনো সম্ভাবনা নেই। ২৭ এপ্রিল সিলেটে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এ ছাড়া ২৮ ও ২৯ তারিখের দিকে দেশের অন্যান্য জেলায় বৃষ্টিপাত হতে পারে।
বাংলাদেশের আবহাওয়া বিভাগে গত ৭৮ বছরের তাপমাত্রার রেকর্ড রয়েছে। তাতে দেখা যায়, ১৯৬০ সালের ৩০ এপ্রিল ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৪২ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এরপর ২০১৪ সালের ১৪ এপ্রিল ঢাকায় তাপমাত্রা পৌঁছে ৪০ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। যাকে গত ৫৪ বছরের মধ্যে ‘সর্বোচ্চ তাপমাত্রা’ বলছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। তবে এবার এপ্রিলে তাপমাত্রা সেই রেকর্ড ছাড়াতে পারে। যদিও এপ্রিলে ঢাকায় স্বাভাবিক তাপমাত্রা ৩৩-৩৪ ডিগ্রির মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে।
শুধু ঢাকায় নয়, চলতি মাসে দেশের অনেক আরও কয়েকটি অঞ্চলেও তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়াতে পারে বলে পূর্বাভাস রয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তরের। এ সময় দেশের উত্তর মধ্যাঞ্চলের ওপর দিয়ে তীব্র দাবদাহ বয়ে যাবে বলেও পূর্বাভাসে বলা হয়েছে।
আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, বর্তমানে পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত। আর মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।
আবহাওয়াবিদ আরিফুর রহমান জানান, থার্মোমিটারের পারদ চড়তে চড়তে যদি ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওঠে তাকে মৃদু, ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে তাকে মাঝারি এবং ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেলে তাকে তীব্র দাবদাহ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।