advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কারাগার থেকে কীভাবে নির্দেশনা আসছে তার তদন্ত দরকার

মুহাম্মদ আরিফুর রহমান,ফেনী
২৬ এপ্রিল ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৬ এপ্রিল ২০১৯ ০১:১৯

দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনে নিহত ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির বাবা মাওলানা একেএম মুসা বলেছেন, যারা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে, তাদের থেকে আমরা জানতে পেরেছি, আসামি নুর উদ্দিন ও শাহাদাত হোসেন শামীমসহ অনেকে গত ৩ ও ৪ এপ্রিল মাদ্রাসা অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলার সঙ্গে দেখা করেছে।

তারা কীভাবে সিরাউদ্দৌলার সঙ্গে দেখা করেছে এবং সেখানে কারাকর্তৃপক্ষের কারও সম্পৃক্ততা ছিল কিনা তা তদন্ত করা দরকার। একই সঙ্গে কারাগার থেকে কীভাবে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সেটিরও তদন্ত দরকার।

advertisement

গতকাল বৃহস্পতিবার আমাদের সময়ের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ দাবি জানান। মাওলানা মুসা বলেন, মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে বিচার করে আসামিদের শাস্তি কার্যকর করা হোক। যদি আসামিদের দ্রুত বিচারের আওতায় আনা হয়, তা হলে এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনা আগামীতে ঘটবে না। আমি মেয়ে হারিয়েছি, অন্য কারও মা-বাবার বুক এভাবে যেন খালি না হয়। আমার মেয়ে নুসরাত অনেক কষ্ট করে মারা গেছে। এখনো মনে হলে বুক ফেটে যায়। মৃত্যুর আগে সে পানি খেতে চেয়েছিল, আমি দিতে পারিনি।

তিনি আরও বলেন, মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটিতে অসৎ লোকদের রাখা ঠিক হবে না। যদি সোনাগাজী মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটি শুরু থেকে ব্যবস্থা গ্রহণ করত, তা হলে নুসরাত হত্যার মতো নির্মম ঘটনা ঘটত না। খুনিদের সহযোগী মহিউদ্দিন শাকিল গ্রেপ্তার : ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার সন্দেহভাজন আসামি মহিউদ্দিন শাকিলকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গতকাল বৃহস্পতিবার ফেনী শহরের উকিলপাড়ায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সদস্যরা তাকে গ্রেপ্তার করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও পিবিআইর পরিদর্শক মো. শাহ আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তদন্ত কর্মকর্তা মো. শাহ আলম জানান, রুহুল আমিনকে পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এ ছাড়া আরেক আসামি শামীমের পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। আদালত শুনানি শেষে তার তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। যদিও এর আগে হত্যার দায় স্বীকার করে সে ওই আদালতে জবানবন্দি দিয়েছিল। মামলার বাদী অ্যাডভোকেট শাহজাহান সাজু জানান, এ মামলায় মোট ৮ জন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তবে শামীমের সঙ্গে বাকি সাত জনের বক্তব্যে অসামঞ্জস্য পাওয়া গেছে। সে জন্য আদালত আবার তার রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।