advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সেই কৃষকের ধান বিনামূল্যে কেটে দিলেন কলেজছাত্ররা

কাজল আর্য টাঙ্গাইল
১৫ মে ২০১৯ ১৮:০৪ | আপডেট: ১৫ মে ২০১৯ ১৮:০৪
advertisement
advertisement

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার কৃষক আবদুল মালেক সিকদারের আগুন দেওয়া সেই ক্ষেতের ধান বিনামূল্যে কেটে দিয়েছে বিভিন্ন কলেজের ছাত্ররা। আজ বুধবার দুপুরে জেলার সরকারি সা’দত কলেজ, মাওলানা মোহাম্মদ আলী কলেজ, লায়ন নজরুল ইসলাম ডিগ্রি কলেজের কলেজের ১০ থেকে ১২ জন ছাত্র ওই ক্ষেতের ধান কেটে দেন।

শ্রমিকের মূল্য বৃদ্ধি ও ধানের দাম কম হওয়ায় গত রোববার আবদুল মালেক নিজের ক্ষেতের পাকা ধানে আগুন দিয়ে প্রতিবাদ জানান।

লায়ন নজরুল ইসলাম ডিগ্রী কলেজের ছাত্র রাফি বলেন, ‘সংবাদমাধ্যমে জানতে পারি শ্রমিকের মূল্য বেশি হওয়ায় ধানক্ষেতে আগুন ধরিয়ে প্রতিবাদ করেছেন আবদুল মালেক। মানবিক বিবেচনা করে আমরা মালেক চাচার ক্ষেতের ধান কেটে দিয়েছি।’

মাওলানা মোহাম্মদ আলী কলেজের ছাত্র আল আমিন বলেন, ‘ধানের তুলনায় ধান কাটা শ্রমিকের মূল্য অনেক বেশি। প্রায় দেড় মণ ধানের দাম দিয়ে একজন ধান কাটা শ্রমিকের মজুরি হয়। সেই দিক বিবেচনা করে আমরা ধান কেটে দিয়েছি।’

ধান কাটা শ্রমিকের মূল্য বেশি হওয়ার পরও শ্রমিক সংকট রয়েছে। ফলে ধান কাটা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন অনেক কৃষক। সেই জন্য তারা বিভিন্ন কলেজ থেকে মালেক মিয়াকে সহযোগিতা করার জন্য এসেছেন বলে অন্য ছাত্ররা জানিয়েছেন।

কৃষক আবদুল মালেক সিকদার জানান, তিনি এবার ১১৫ শতাংশ জমিতে ধান আবাদ করেছেন।  শ্রমিক না পাওয়ায় ও ধানের দাম কম হওয়ায় রাগে, মনের দুঃখে নিজের পাকা ধানে আগুন দেন। এই খবর জেনে ছাত্ররা ধান কেটে দেওয়ার জন্য এসেছে। তাই তিনি অনেক খুশি।

মালেক সিকদার আরও জানান, এদেশ কৃষি নির্ভর। তাই গবির কৃষকদের বাঁচাতে হলে ধানের দাম বৃদ্ধিসহ সরকারের সুদৃষ্টি প্রয়োজন।

এদিকে কলেজ ছাত্রদের এই মানবিক উদ্যোগকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন স্থানীয় কৃষক ও এলাকাবাসী।

প্রসঙ্গত, গত ১২ মে রোববার দুপুরে কালিহাতী উপজেলার পাইকড়া ইউনিয়নের বানকিনা গ্রামের কৃষক আবদুল মালেক সিকদার ধানের ন্যায্য মূল্য না পেয়ে নিজের পাকা ধানে আগুন দিয়ে অভিনব প্রতিবাদ জানান। মালেক সিকদারের এই প্রতিবাদে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন এলাকার অধিকাংশ কৃষক। পাকা ধানে আগুন দেখে অনেকেই ছুটে আসেন। পরে বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়।

advertisement