advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শচিন টেন্ডুলকার পেলেন বিশ্বকাপ

১৬ মে ২০১৯ ০০:০০
আপডেট: ১৬ মে ২০১৯ ০৯:০৬
advertisement

২০১১ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পর্দা ওঠে দশম ক্রিকেট বিশ্বকাপের। ১৯৮৭ ও ১৯৯৬ সালের পর আবারও ভারতীয় উপমহাদেশে ফেরে ক্রিকেট বিশ্বকাপ।

শুরুতে ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকা ও বাংলাদেশ যৌথভাবে বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব পেলেও নিরাপত্তার কারণে আয়োজক দেশের তালিকা থেকে নাম বাদ পড়ে পাকিস্তানের। মুম্বাইয়ে শ্রীলংকাকে হারিয়ে শিরোপা জেতে শচিন টেন্ডুলকারের ভারত। মহেন্দ্র সিং ধোনি ও যুবরাজ সিং অবিশ্বাস্য এক টুর্নামেন্ট খেলেন। ফাইনালে মাহেলা জয়াবর্ধানের অপরাজিত শতকে আগে ব্যাট করা শ্রীলংকা নির্ধারিত ৫০ ওভারে রান করে ২৭৪/৬।

জবাবে শুরুতে বীরেন্দর শেওয়াগ, শচীন টেন্ডুলকারের উইকেট হারালেও গৌতম গাম্ভীরের ৯৭ ও অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির অপরাজিত ৯১ রানে ভারত জেতে ৬ উইকেটের ব্যবধানে। নুয়ান কুলাসেকারার বল লং অনে উড়িয়ে মেরে ধোনি নিশ্চিত করে ২৮ বছর পর ভারতের বিশ্বকাপ জয়। ভারত জিতে নেয় তাদের দ্বিতীয় বিশ্বকাপ শিরোপা আর শ্রীলংকা টানা দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ ফাইনাল থেকে ফেরে শূন্য হাতে! ২০১১ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ স্মরণীয় হয়ে আছে শচীন টেন্ডুলকারের জন্যও।

ব্যাটসম্যান শচীনের ক্যারিয়ার শতভাগ পরিপূর্ণ; কোনো আক্ষেপ থাকার কথাও নয়। শচীনের আজন্ম লালিত স্বপ্ন ছিল দেশের হয়ে বিশ্বকাপ জেতা। পাঁচটি বিশ্বকাপ খেলে শেষমেশ শচীন নিজের শেষ বিশ্বকাপে এসে জিতে আরাধ্য ক্রিকেট বিশ্বকাপ। দেশের মাটিতে নিজের শেষ বিশ্বকাপে ব্যাট হাতেও দারুণ সফল ছিলেন লিটল মাস্টার। ৯ ইনিংসে ৫৩ গড়ে দুই অর্ধশতক, দুই শতকে দ্বিতীয় সর্বাধিক ৪৮২ রান করে।

advertisement