advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

এবার দ্বিতীয় ইনিংস খেলব : ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
২০ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ১৯ মে ২০১৯ ২৩:৩৩
advertisement

মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে আসাকে জীবনের দ্বিতীয় ইনিংস উল্লেখ করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তার মতে, সড়ক পরিবহনে শৃঙ্খলা বিধান এবং বড় প্রকল্পগুলো যথাসময়ে শেষ করাই এ ইনিংসের বড় চ্যালেঞ্জ।

সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা শেষে দেশে ফেরার পর গতকাল প্রথম সচিবালয়ের কার্যালয়ে এসে মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন চলমান উন্নয়ন প্রকল্পবিষয়ক সভা এবং গণমাধ্যমের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। সেখানে তিনি বলেন, প্রথম ইনিংস শেষ করেছি। ইনশা আল্লাহ আমি এবার দ্বিতীয় ইনিংস খেলব। গত

৩ মার্চ ওবায়দুল কাদের গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স করে তাকে সিঙ্গাপুরে নিয়ে ভর্তি করা হয় মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে। সেখানে চিকিৎসা শেষে ২ মাস ১১ দিন পর গত বুধবার সন্ধ্যায় দেশে ফেরেন। ২ মাস ১৬ দিন পর মন্ত্রী গতকাল মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে প্রথম মতবিনিময় করেন। এর পর মন্ত্রণালয়ের চলমান উন্নয়ন প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন অগ্রগতিবিষয়ক সভায় সভাপতিত্ব করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এবারের ঈদযাত্রা অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে অধিকতর স্বস্তিদায়ক হবে। মন্ত্রী জানান, ২৫ মে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে নবনির্মিত দ্বিতীয় মেঘনা ও গোমতী সেতু এবং জয়দেবপুর-টাঙ্গাইল মহাসড়কে দুটি সেতু, দুটি ফ্লাইওভার এবং চারটি আন্ডারপাস যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেবেন। এতে এ দুটি মহাসড়ক দিয়ে যাত্রীদের ঘরে ফেরা নির্বিঘœ হবে বলে তিনি জানান।

এক প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ভারতীয় ঋণ কর্মসূচির আওতায় ইতোমধ্যে বিআরটিসির জন্য ৫০০ ট্রাকের মধ্যে ৪৮০টি এবং ৬০০ বাসের মধ্যে ১৭৯টি ঢাকায় পৌঁছেছে। এবারে বিআরটিসির ঈদ স্পেশাল সার্ভিসে থাকছে প্রায় ১১শ বাস। এ ছাড়া জরুরি অবস্থা মোকাবিলায় ৫০টি বাস স্ট্যান্ডবাই রাখা হবে বলে মন্ত্রী জানান।

এ সময় সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী ইবনে আলম হাসান, বিআরটিএর চেয়াম্যান মো. মশিয়ার রহমান, বিআরটিসির চেয়ারম্যান ফরিদ আহমেদ ভূঁঁইয়া, ডিটিসিএর নির্বাহী পরিচালক খন্দকার রাকিবুর রহমানসহ সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গতকাল সকালে নিজ কক্ষে ঢুকে তিনি সড়ক মেরামত সংক্রান্ত একটি ফাইলে স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে কার্যক্রম শুরু করেন। এর পর বেশ কয়েকটি ফাইলে স্বাক্ষর করেন। মন্ত্রণালয়ের সচিব, বিআরটিএ, বিআরটিসিসহ অধীনস্থ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের সঙ্গে দাপ্তরিক কাজের খোঁজখবর নেন ও দিকনির্দেশনা দেন। মন্ত্রণালয়ে দেড় ঘণ্টার মতো অবস্থান করেন।

নিজের বর্তমান শারীরিক অবস্থার কথা জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, শারীরিকভাবে এখন সুস্থ হলেও শরীর অনেক দুর্বল। দুই মাস পরপর চেকআপে যেতে হবে। আগামী ১৬ জুলাই সিঙ্গাপুরে যেতে হবে। একটু সতর্কভাবে চলতে বলেছেন চিকিৎকরা। ভারী কাজ বা অতিরিক্ত পরিশ্রম করতে বারন করেছেন। এক দেড় মাস পর আবার পুরোদমে আগের মতোই সব কাজ করতে পারব। এ সময়ে আমি প্রত্যক্ষভাবে সক্রিয় না হলেও কাজ থেমে থাকবে না। মানসিকভাবে আমি পুরোপুরি সুস্থ।

আওয়ামী লীগের কাউন্সিল প্রসঙ্গে এক প্রশ্নে ওবায়দুল কাদের বলেন, দলীয় কাউন্সিল যথাসময়ে হবে। প্রতি তিন বছর পরপর কাউন্সিল হয়, এবারও হবে। সেই লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর তত্ত্বাবধানে কর্মসূচি ও টার্গেট নিয়ে টিমওয়ার্ক চলছে।

advertisement