advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ফুটবল-কন্যাদের বিদ্যালয় কলসিন্দুর জাতীয়করণ

ধোবাউড়া প্রতিনিধি
২০ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২০ মে ২০১৯ ০৯:৩১
advertisement

কলসিন্দুরের ফুটবল-কন্যাদের কৃতীর স্মারক মেডেল ও সনদে আগুন দেওয়ার ঘটনার পাঁচ দিন পর জাতীয়করণ করা হলো তাদের প্রিয় প্রতিষ্ঠান কলসিন্দুর উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়। গতকাল প্রতিষ্ঠানটির সহকারী অধ্যাপক মালা রানী সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, গতকাল সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে কলসিন্দুর উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয় জাতীয়কারণ হওয়ার লিখিত সরকারি আদেশটি গ্রহণ করেছি। জাতীয়করণের সংবাদ কলসিন্দুর পৌঁছামাত্র শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসী উল্লাস প্রকাশ করেন। গত মঙ্গলবার ভোরে কলসিন্দুর উচ্চমধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্কুল শাখার অফিস কক্ষে দুর্বৃত্তরা আগুন দেয়। কয়েকটি আলমারির তালা ভেঙে ফুটবলার মেয়েদের খেলার সনদ, মেডেল এবং বিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্রেও আগুন লাগায়।

এ ঘটনায় গত বুধবার রাতে ধোবাউড়া থানায় মামলা করেন বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. রতন মিয়া। গত শনিবার যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয় গঠিত অনুসন্ধান তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটির আহ্বায়ক ময়মনসিংহ যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপপরিচালক ফারজানা পারভীন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ছাড়া ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন ও জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পুলিশের প্রাথমিক ধারণা, প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলকে কেন্দ্র করে কেউ আগুন লাগাতে পারে।

তবে শিক্ষকদের দাবি, তাদের মধ্যে কোনো কোন্দাল নেই। পুলিশ মামলাটি তদন্ত করছে। কলসিন্দুর উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্কুল শাখার অন্তত দশ ছাত্রী বাংলাদেশ জাতীয় ও বয়সভিত্তিক ফুটবল দলে নিয়মিত খেলেন। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৬ সালে কলসিন্দুর গ্রামে বিদ্যুতায়ন করা হয়। পরবর্তী সময়ে একটি অনুষ্ঠানে মেয়েরা তাদের বিদ্যালয় জাতীয়করণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অনুরোধ করেন।

advertisement