advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বজ্রপাতে মা-ছেলেসহ প্রাণ গেল ৬ জনের

আমাদের সময় ডেস্ক
২০ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২০ মে ২০১৯ ০৯:৩০
advertisement

আকস্মিক বজ্রপাতে মা-ছেলেসহ প্রাণ গেল ছয়জনের। গতকাল রবিবার কক্সবাজার, খাগড়াছড়ি ও জামালপুরে এ ঘটনা ঘটে। নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

কক্সবাজার : পৃথক বজ্রপাতে এক রোহিঙ্গাসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে রামু উপজেলায় দুজন এবং উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে একজনের মৃত্যু ও পাঁচজন দগ্ধ হয়েছেন। গতকাল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের কালারপাড়া তুলাবাগান এলাকায় বজ্রপাতে একই পরিবারের দুই শিশুর মৃত্যু এবং তিনজন দগ্ধ হন। তারা হলো ওই এলাকার মাওলানা নুরুল ইসলামের কন্যা ফাতেমা খাতুন (১৫) ও আফনান (২)।

রামু থানার ওসি আবুল মনুসর বজ্রপাতের ঘটনা নিশ্চিত করেছেন। একই দিন পৌনে ১২টার দিকে উখিয়া উপজেলার কুতুপালং শরণার্থী ক্যাম্প ৫-এর চাঁদমিয়া ছড়া খেলার মাঠ এলাকায় বজ্রপাতে আবদুস সালাম (৫০) নামে এক রোহিঙ্গার মৃত্যু ও দুজন দগ্ধ হন। এটি নিশ্চিত করেছেন উখিয়া থানার ওসি নুরুল ইসলাম মজুমদার।

খাগড়াছড়ি : মাটিরাঙা উপজেলার বড়নাল ইউনিয়নের করিম মাস্টারপাড়া এলাকায় বজ্রপাতে ভোর ৪টার দিকে মা-ছেলের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় পরিবারের আরও দুজন আহত হন। নিহতদের পরিবারকে ৪০ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসন। দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিভীষণ কান্তি দাশ নিহত আয়েশা খাতুনের স্বামী আব্দুল খালেকের হাতে অনুদানের চল্লিশ হাজার টাকা তুলে দেন। নিহতরা হলেন আয়েশা খাতুন (৫৫) ও মো. আব্দুল মমিন (২২)। আহতরা হলেন নিহত আয়েশা খাতুনের মেয়ে আলেয়া বেগম (৩০) ও তার ছেলে মো. আরাফাত হোসেন (৮)। একই সময়ে মাটিরাঙা উপজেলার বেলছড়ি ইউনিয়নের খেদাছড়া এলাকায় রাজিয়া খাতুন (৫৫) নামে এক গৃহিণী বজ্রপাতে দগ্ধ হন। এ সময় একটি গরু মারা গেছে।

জামালপুর : মেলান্দহ উপজেলার ঝাউগড়া ইউনিয়নের পৈরবাড়ি গ্রামে গত শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ধানক্ষেতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে কল্পনা বেগম (২৭) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় তার স্বামী বাবর আলী (৩৫) ও ছেলে কবির হোসেন (৮) আহত হন।

advertisement