advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

প্রথম স্ত্রীর ফেরার খবরে অন্তঃসত্ত্বা দ্বিতীয় স্ত্রীকে ‘হত্যা’

ধনবাড়ী (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি
২০ মে ২০১৯ ২২:৩৯ | আপডেট: ২১ মে ২০১৯ ০২:০৩
প্রতীকী ছবি

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে স্বামীর নির্যাতনে পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা রুমা আক্তার (১৭) নামের এক গৃহবধূর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। গতকাল রোববার উপজেলার যদুনাথপুর ইউনিয়নের চকভিকি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আজ সোমবার সকালে পুলিশ ওই গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যুর বিষয়ে স্বামী বেলাল হোসেনকে (২৮)আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

advertisement

বেলাল সরিষাবাড়ী উপজেলার মাজালিয়া গ্রামের আবদুল খালেকের বিদেশ ফেরত ছেলে। নিহত রুমা আক্তার বেলালের দ্বিতীয় স্ত্রী।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ঘটনাস্থলে তদন্তে যাওয়া ধনবাড়ী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নূরে আলম  বেলাল জানান, বেলাল হোসেন জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার মাজালিয়া গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। প্রবাসে থাকা অবস্থায় যদুনাথপুরের চকভিকি গ্রামের আপন চাচাতো বোন রোজিনা বেগমকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর বেলাল সেখানেই বসবাস শুরু করেন।  রোজিনা চকভিকি গ্রামের আবদুস সামাদের মেয়ে। প্রবাসে থাকা অবস্থায় বেলালের প্রথম স্ত্রী তাকে ছেড়ে পরকিয়ার টানে প্রেমিকের সঙ্গে অন্যত্র চলে যান। বেলাল দেশে ফিরে নতুন করে সংসার শুরুর আশায় রংপুরের মেয়ে রুমার সঙ্গে মুঠোফোনে সম্পর্ক শুরু করেন। রুমা এক পর্যায়ে বেলালের কাছে চলে আসেন। রুমা সাবালিকা না হওয়ায় বিনা রেজিস্ট্রিতে বিয়ে করেন তারা। বিয়ের কয়েক মাসের মধ্যেই সন্তান সম্ভবা হন তিনি।

এসআই জানান, এদিকে বেলালের প্রথম স্ত্রী রোজিনা আবার সংসারে ফিরে আসবেন গুঞ্জনে রুমা বেলালের মধ্যে দাম্পত্য কলহ শুরু হয়। বেকার বেলাল নানা সময়ে রুমার ওপর নির্যাতন চালান। খাওয়ার ব্যবস্থা না করেই কয়েকদিনের জন্য বাড়ি ছাড়া হয়ে থাকেন। এ সময় রুমা অন্যের বাড়িতে কাজ করে, ধার-দেনা করে চলতেন।

তিনি আরও জানান, রোববার সন্ধ্যায় রুমা নির্যাতনের শিকার হয়ে অসুস্থ্য হন। তাকে প্রথমে ধনবাড়ী ও পরে মধুপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে রাত ১০টার দিকে চিকিৎসক রুমাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে মধুপুর থানা পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে এবং স্বামী বেলালকে হেফাজতে নেয়।

মধুপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ফখরুল ইসলাম জানান, রুমার লাশ ও বেলালকে ধনবাড়ী থানা পুলিশের হেফাজতে দেওয়া হয়েছে।

ধনবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মজিবর রহমান এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। তিনি জানান, লাশ উদ্ধার করে টাঙ্গাইল মর্গে পাঠানো হয়েছে। বেলালকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। মামলার প্রক্রিয়া চলছে।