advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সংরক্ষিত আসনে বিএনপির এমপি হচ্ছেন রুমিন

আসাদুর রহমান
২১ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২১ মে ২০১৯ ০০:৪৬
advertisement

একাদশ জাতীয় সংসদে বিএনপির জন্য নির্ধারিত একমাত্র সংরক্ষিত নারী আসনে সংসদ সদস্য হতে যাচ্ছেন দলটির সহ-আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা। বিএনপির মনোনয়নপত্র হাতে পেয়ে গতকাল সোমবার দুপুর ১টায় নির্বাচন কমিশনে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবুল কাসেমের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ মনোনয়ন চূড়ান্ত করা নিয়ে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে ব্যাপক বিপাকে পড়তে হয়েছে। কারণ দলের প্রভাবশালী এক নেতাসহ বিএনপিপন্থি বুদ্ধিজীবীরা রুমিনের পক্ষে অবস্থান নেন, অন্যদিকে দলের সিনিয়র নেতারাসহ নারীনেত্রীরা দলের কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট নিপুণ রায়কে

সমর্থন দেন। এ অবস্থায় একপর্যায়ে ওই দুজনকে বাদ দিয়ে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমানের পক্ষে সুপারিশও করেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪-দলীয় জোটের অন্যতম শরিক দল ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সংসদ সদস্য রাশেদ খান মেননের বোন হওয়ায় সেলিমাকে বাদ দিয়ে রুমিনকেই বেছে নেওয়া হয়। এ নিয়ে দলের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া রয়েছে। দলের নারীনেত্রীদের অভিযোগ, স্বল্প সময়ের ব্যবধানে দলে এসে এত বড় পুরস্কারÑ এটা নেতাকর্মীদের কাছে ভুল বার্তা যাবে। বিশেষ করে যারা জেল খেটেছেন, আন্দোলন করতে গিয়ে রাজপথে নির্যাতনের শিকার হয়েছেনÑ তারা নিষ্ক্রিয় হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

তবে সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়নপ্রত্যাশী ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানাকে অভিনন্দন জানাতে ভুল করেননি নিপুণ রায়চৌধুরী। রুমিনকে অভিনন্দন জানিয়ে আমাদের সময়কে নিপুণ বলেন, ‘দল যাকে ভালো মনে করেছে তাকেই মনোনয়ন দিয়েছে। আমরা যেহেতু সবাই একই দল করি, সেহেতু দলের সিদ্ধান্তও আমরা মানি। দলের সবার লক্ষ্য এক এবং অভিন্ন জানিয়ে নিপুণ বলেন, ‘দেশনেত্রী ও গণতন্ত্রের মা বেগম খালেদা জিয়া ভিত্তিহীন মামলায় আজ কারাগারে। এ অবস্থায় গণতন্ত্রের মাকে মুক্ত করা, সব ষড়যন্ত্র ভেঙে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে আসার পরিবেশ সৃষ্টি ও গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা, জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করা। সে লক্ষ্যে আমরা সামনে এগিয়ে যাচ্ছি।’

এদিকে সংরক্ষিত নারী আসনের ক্ষেত্রে একটি আসনে একক প্রার্থী থাকেন বলে ভোটের আনুষ্ঠানিকতার প্রয়োজন হয় না। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের দিন শেষে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হয় প্রার্থীকে। মনোনয়নপত্রসহ সবকিছু ঠিক থাকলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন রুমিন ফারহানা।

ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেছেন, রিটার্নিং কর্মকর্তা যদি দেখেন যে সব কাগজ ঠিক আছে, তবে গেজেট প্রকাশ করা হবে।

তফসিল অনুযায়ী, রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা ২০ মে, বাছাই ২১ মে, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ২৮ মে ও ভোট ১৬ জুন।

বিএনপির নির্বাচিতরা আগে শপথ না নেওয়ায় তাদের জন্য নির্ধারিত একটি নারী আসন স্থগিত ছিল। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ছাড়া বাকিরা একেবারে শেষ সময়ে শপথ নিলে তাদের জন্য নির্ধারিত একটি নারী আসনের তফসিল ঘোষণা করে ইসি। গতকাল মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমি সংসদে গিয়ে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আশু? মুক্তির জন্য কথা বলব। দেশ, জনগণের জন্য কথা বলব।

সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন দেওয়ায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি বলেন, আমার ওপর যে দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছে তা নিষ্ঠা, সততার সঙ্গে পালন করতে আমি সচেষ্ট থাকব। মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হলে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ জিয়াউর রহমানের কবর জিয়ারত করবেন বলে জানান তিনি।

বিশিষ্ট ভাষাসংগ্রামী অলি আহাদের মেয়ে রুমিন ফারহানা গত কয়েক বছর ধরেই বিএনপির কর্মকা-ে বেশ সক্রিয়। পাশাপাশি টেলিভিশনে বিভিন্ন টকশোতেও তাকে নিয়মিত দেখা যায়। একাদশ সংসদের ৫০টি সংরক্ষিত নারী আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগের ৪৩ জন, জাতীয় পার্টির চার, ওয়ার্কার্স পার্টির এক এবং স্বতন্ত্র জোটের একজন রয়েছেন।

advertisement