advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি ধান কিনতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক
২১ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২১ মে ২০১৯ ০০:৪৬
advertisement

সরকারের নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে মন্ত্রণালয়কে বেশি ধান কেনার ব্যবস্থা করতে বলেছে সংসদীয় কমিটি। কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান কেনারও সুপারিশ করা হয়। এ ছাড়া সরকারি বা বেসরকারি যে কোনোভাবেই চাল আমদানি বন্ধ করতে বলা হয়েছে। গতকাল সোমবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এসব সুপারিশ করা হয়।

বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ নাসিম সাংবাদিকদের বলেন, এবার ধান উৎপাদন বেশি হয়েছে। এ জন্য সরকারকে বলেছি, দেড় লাখ টন ধান কেনার যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে, তার চেয়ে যেন বেশি কেনা হয়। তিনি বলেন,

কমিটি ভর্তুকি দিয়ে হলেও চাল রপ্তানি করার সুপারিশ করেছে। কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান কেনার কথা বলা হয়েছে, যেন মধ্যস্বত্বভোগীরা সুযোগ না পায়।

খাদ্যমন্ত্রী সাধনচন্দ্র মজুমদার জানান, সারাদেশে ২০০টি ৫ হাজার মেট্রিক টন ধারণক্ষমতার ‘প্যাডি সাইলো’ নির্মাণ করার পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। সরকার ১৪ শতাংশ আর্দ্রতাসম্পন্ন ধান কিনছে। যে কারণে অনেক কৃষককে বাধ্য হয়ে চাতাল মালিকদের কাছে কম দামে ধান বিক্রি করতে হচ্ছে। প্যাডি সাইলো নির্মাণ করা হলে কৃষক সেখানে নিজের ধান শুকিয়ে বিক্রি করতে পারবে। আগামী এক মাসের মধ্যে এ প্রকল্পের জন্য ডিপিপি প্রণয়ন করা হবে বলেও জানান তিনি।

মন্ত্রী আরও জানান, কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি যেন ধান কেনা হয় এবং তা তদারকির জন্য ২০টি মনিটরিং টিম কাজ করবে। তারা কোনো পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করবে। কমিটি কৃষকদের স্বার্থে স্বচ্ছতার সঙ্গে ধান সংরক্ষণ এবং চাল আমদানি বন্ধের সুপারিশ করেছে।

বৈঠকে খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধে অভিযান সারা বছর অব্যাহত রাখার সুপারিশ করা হয়। নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের কার্যক্রম শক্তিশালী করতে লোকবল বৃদ্ধি এবং প্রতিটি জেলায় এর কার্যক্রম সম্প্রসারণের সুপারিশ করা হয়।

মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য খাদ্যমন্ত্রী সাধনচন্দ্র মজুমদার, ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, আয়েন উদ্দিন ও আতাউর রহমান খান অংশ নেন।