advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আইনি পদক্ষেপ নিতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক
২২ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২২ মে ২০১৯ ০৮:৫৯

রাজধানীতে ফের সক্রিয় হয়ে উঠেছে অপহরণকারী চক্র। টার্গেট রাজধানীর অভিজাত এলাকার ধনাঢ্য ব্যক্তি ও তাদের সন্তান। এতে ব্যবহার করা হচ্ছে কালো গ্লাসের সাদা মাইক্রোবাস। এক মাসের ব্যবধানে মিরপুর ও তেজগাঁও থেকে অপহরণ করা হয় সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার কামরুল হাসান ও কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার আতাউর রহমান শাহীনকে।

সর্বশেষ গত রবিবার দুপুরে বনানী থেকে অপহরণ করা হয় ব্যবসায়ী মো. তানজির ইসলামকে। বর্তমানে ভীতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে কালো কাচের মাইক্রোবাস। এ ব্যাপারে মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মনজিল মোর্শেদ গতকাল আমাদের সময়কে বলেন, দীর্ঘদিন পেরিয়ে গেলেও এর প্রতিকারে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এতে করে অপহরণকারী বা যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা সুযোগটি নিয়ে যাচ্ছে।

advertisement

তিনি বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়নি। বিষয়টি যেহেতু আবারও আলোচনায় এসেছে, তাই এখনো সময় আছে নিষেধাজ্ঞা থাকা গাড়ির বিষয়ে আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করার। কালো গ্লাসের গাড়ি চলতে পারে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা চাইলে আইন প্রয়োগ করতে পারেন।

মনজিল মোর্শেদ বলেন, প্রাইভেট কারের বিষয়ে শিথিলতা থাকা দরকার। কারণ ভিআইপি, বিচারপতিসহ রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা প্রাইভেট কারে চড়েন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের কালো গ্লাসের গাড়ি ব্যবহারের বিষয়ে তিনি বলেন, একই আইন সবার জন্য সমান। এর আগে ২০১৪ সালের এপ্রিলে একইভাবে নারায়ণগঞ্জে ৭ খুনের ঘটনার পর কালো গ্লাসের মাইক্রোবাস, মিনিবাস বা জিপসহ নোয়া, ভক্সি গাড়িতে কালো গ্লাস ব্যবহার নিষিদ্ধে উচ্চ আদালতে একটি রিট করেন মনজিল মোর্শেদ। ওই ঘটনায় আদালত নিষেধাজ্ঞার আদেশও দেন। কিন্তু কাজের কাজ বলতে কিছুই হয়নি। অপরাধীরা ধারাবাহিকভাবে অপরাধ করেই চলছে