advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

দিল্লির মসনদ কার

আমাদের সময় ডেস্ক
২৩ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ মে ২০১৯ ১১:৫০
advertisement

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে সাত দফায় ভোটগ্রহণের পর আজ বৃহস্পতিবার ফল ঘোষণা হবে; যা নিয়ে এখন উত্তেজনায় ফুটছে সারা ভারত। গত রবিবার সপ্তম দফা ভোটগ্রহণের পর প্রকাশিত বুথফেরত জরিপে বিপুল আসনে জয়ের আভাস পেয়ে এখন ফুরফুরে মেজাজে আছে ক্ষমতাসীন বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট।

তবে ভোটে কারচুপি ও কারসাজির অভিযোগ এনে একাট্টা হয়েছে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট এবং অন্য বিরোধী দলগুলো। ইভিএমের ফল পাল্টে দেওয়া হতে পারেÑ এ আশঙ্কায় এরই মধ্যে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছে তারা। এমনকি বিভিন্ন কেন্দ্রের ইভিএম রাখার স্ট্রংরুমের সামনে তারা পাহারাও বসিয়েছে। কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীসহ বিরোধী নেতারা এক বাক্যে বুথফেরত জরিপের ফলকে ভুয়া বলে উড়িয়ে দিয়ে জনগণকে বলেছেন সত্য প্রকাশের জন্য অপেক্ষা করতে।

এমন উত্তেজনাকর পরিস্থিতির মধ্যে আজ নির্বাচনের ফল কী হবে, তা নিয়ে আগ্রহী সবাই। যদিও ফল জানতে এবার অনেক দেরি হতে পারে বলে মনে করছে নির্বাচন কমিশন। কর্মকর্তারা মনে করছেন, আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে ভোট গণনা শুরু হলেও অনেক রাতে হয়তো ফল জানা যাবে। তবে প্রতি রাউন্ডের শেষে অন্যবারের মতোই ফল জানানো হবে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে। গতকাল বুধবার অমিতাভ ভট্টশালীর লেখায় বিবিসি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। ভারতের সিনিয়র উপনির্বাচন কমিশনার উমেশ মিশ্র জানিয়েছেন, ইভিএমের ভোট গণনার পর ভিভিপ্যাট যন্ত্রের কাগজের সিøপ গোনা শুরু হবে। তার পরে দুটি যন্ত্রের ভোটের সংখ্যা মিলিয়ে দেখা হবে।

কেন্দ্রপিছু পাঁচটি করে বুথের ইভিএম আর ভিভিপ্যাটের ফল মেলানো হবে। এ পাঁচটি বুথ বাছাই করা হবে লটারির মাধ্যমে। ভারতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএম ব্যবহার শুরু হওয়ার পর থেকে গণনার দিন দুপুরের মধ্যেই মোটামুটিভাবে স্পষ্ট হয়ে যায় ফল। কিন্তু এবারের ভোটে সব কেন্দ্রেই ইভিএমের সঙ্গে যুক্ত যে ভিভিপ্যাট যন্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে, তা একটি একটি করে গুনতে হবে। ইভিএমের ভোটের সঙ্গে ভিভিপ্যাট যন্ত্রের ফল না মিললে আবারও গুনতে হবে ভোট। তার পরই ফল প্রকাশ করা যাবে। একেকটি ভিভিপ্যাট যন্ত্রের ভোট গুনতে প্রায় এক ঘণ্টা সময় লাগবে। যদি একবারেই মিলে যায় ফল, তা হলেও একেকটি কেন্দ্রের ফল ঘোষণা হতে অন্তত পাঁচ ঘণ্টা বেশি সময় লাগবে।

রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক সব্যসাচী বসু রায় চৌধুরী কয়েক দশক ধরে নির্বাচনের ফল বিশ্লেষণ করেন। তিনি বলেন, প্রতিটি ভিভিপ্যাট যন্ত্রের সিøপ একটা একটা করে গুনতে হবে। যদি ইভিএমের সংখ্যার সঙ্গে সেটা না মেলে, তা হলে আবারও গুনতে হবে। তাই ব্যালটের যুগে যেমন গণনা শেষ হতে প্রায় ৭২ ঘণ্টা সময় লাগত, আমার ধারণা এবার প্রক্রিয়াটি শেষ হতে অন্তত ৩০ ঘণ্টা সময় লাগবে। যদি একটি ইভিএমে কোনো প্রার্থী ৭২৩টি ভোট পায়, আর ভিভিপ্যাটের সিøপ গুনে দেখা গেল ৭২২ হচ্ছে, তা হলে স্বাভাবিকভাবেই আবারও গুনতে হবে। এদিকে বুথফেরত জরিপের আভাসকে সত্য ধরে নিয়ে এখন জোট শরিকদের দ্বারস্থ হয়েছে বিজেপি। এনডিএর যে শরিক দলগুলোর এতদিন খোঁজও নেননি বিজেপি নেতারা, নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ফল ঘোষণার আগে হঠাৎ করেই আবার তাদের কদর বেড়েছে।

আবারও তারাই ভারতের ক্ষমতায় আসছে ধরে নিয়ে গত মঙ্গলবার শরিকদের ডেকে নিয়ে বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। দিল্লির পাঁচতারকা হোটেল অশোকাতে এদিন এনডিএ শরিক দলগুলোর নেতাদের সঙ্গে এক নৈশভোজের আগে নতুন সরকার গঠনে বিজেপির পরিকল্পনা প্রকাশ করেন তারা; যাকে অভিহিত করা হয়েছে দ্বিতীয় এনডিএ সরকার গঠনের ‘ব্লু প্রিন্ট’ হিসেবে। বৈঠকের একটি সূত্রের বরাত দিয়ে এনডিটিভি জানিয়েছে, নির্বাচনের ফলে সরকার গড়ার মতো জায়গায় গেলে তিনটি মূল বিষয়কে সামনে রেখে এবার জোট বাঁধবে বিজেপির নেতৃত্বে তাদের শরিকরা। তার মধ্যে আছে জাতীয় নিরাপত্তা, দেশাত্মবোধ ও উন্নয়ন।

বৈঠক শেষে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং জানান, এনডিএর অন্তর্ভুক্ত ৩৬টি দল এ নৈশভোজে উপস্থিত ছিল। তিনটি দল আসতে পারেনি। কিন্তু তারা লিখিতভাবে নিজেদের সমর্থন জানিয়েছে। রাজনাথ বলেন, গত পাঁচ বছরে সরকার মানুষের নিত্যপ্রয়োজন মেটানোর চেষ্টা করেছে। আগামী পাঁচ বছর আমরা এ কাজেই গতি আনতে চাই। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগোব আমরা। পাশাপাশি সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান এবং সন্ত্রাসবিরোধী অবস্থান নেওয়ার ক্ষেত্রে ভারত অন্য দেশগুলোর সঙ্গে আরও বেশি সমন্বয় সাধন করবে। বৈশ্বিক উষ্ণায়নের মতো প্রাকৃতিক সমস্যা সমাধানের জন্যও চেষ্টা করবে নতুন সরকার।

রাজনাথ আরও বলেন, আমাদের সরকারের কাছে দেশের সুরক্ষাই প্রথম। গত পাঁচ বছর আমরা সেই ভাবনাকে সামনে রেখেই সরকার চালিয়েছি। সবাই বিশেষ করে অন্য দেশগুলো বুঝতে পারছে সন্ত্রাসবাদ প্রসঙ্গে ভারতের যে নমনীয় অবস্থান আগে ছিল, এখন আর তা নেই। এই পরিবর্তিত চিন্তাকে এগিয়ে নেওয়ার কাজই করবে আমাদের সরকার। আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, জয়ের ব্যাপারে এখন বিজেপি এতই আত্মবিশ্বাসী যে, আগামী রবিবার রেডিওতে ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠান করারও প্রস্তুতি নিচ্ছেন মোদি। এমনকি রবিবারের মধ্যে শপথগ্রহণের জন্যও নাকি তিনি প্রস্তুত।

advertisement