advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

সন্ধ্যা নদীর বালু উত্তোলন কাজ স্থগিত করলেন হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৩ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৩ মে ২০১৯ ০৯:৪৮
advertisement

বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার সন্ধ্যা নদী থেকে বালু উত্তোলনের অনুমোদনের কার্যকারিতা তিন মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের স্মৃতি জাদুঘর, পাঠাগারসহ অন্যান্য স্থাপনা নদীগর্ভে বিলীন ঠেকাতে বালু উত্তোলন বন্ধের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল বুধবার বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। পাশাপাশি বালু উত্তোলনে ইজারা দেওয়াকে কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না এবং ভবিষ্যতে ওই এলাকায় বালু উত্তোলনের ইজারা না দিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, সেটিও জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে।

ভূমি সচিব, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত সচিব, পরিবেশ সচিব, বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার, ঢাকার ডেপুটি কমিশনারসহ ১১ জনকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল। তাকে সহযোগিতা করেন অ্যাডভোকেট মুসাদ্দেক বিল্লাহ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এবিএম আবদুুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

পরে ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল জানান, চলতি বছরের ১৫ এপ্রিল মেসার্স সততা ট্রেডার্স সন্ধ্যা নদী থেকে বালু উত্তোলনের অনুমতি পায়। এর পর তারা নদীর বালু উত্তোলন শুরু করে। এতে বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের বাড়ি, স্মৃতি জাদুঘরসহ অন্যান্য স্থাপনা নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার উপক্রম হয়। এ অবস্থায় স্থানীয় বাসিন্দা ও পশ্চিম ভুতেরদিয়া আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আবদুল কাদের মাল হাইকোর্টে রিট করেন।

আদালত আজ ওই রিটের শুনানি নিয়ে রুলসহ এ আদেশ দেন। একই সঙ্গে বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীরের স্মৃতি জাদুঘরসহ স্থাপনা রক্ষায় ১ নম্বর জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম তারেকের আবেদনটি ৩০ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

advertisement