advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শেয়ারবাজারে দিনভর ব্যাপক উত্থান-পতন

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৪ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৪ মে ২০১৯ ০৮:৫৯
advertisement

নানা ধরনের উদ্যোগের পরও দেশের শেয়ারবাজারে স্বাভাবিক গতি ফিরছে না। দরপতনের বাজারে পরিণত হয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছে, দরপতনের যৌক্তিক কোনো কারণে নেই। গতকাল ঢাকার শেয়ারবাজারে ব্যাপক উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে লেনদেন হয়েছে। তবে দিন শেষে সামান্য পতনের মাধ্যমে লেনদেন শেষ হয়েছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, সকাল ১০টা ২ মিনিটে ডিএসইর প্রধান সূচক ছিল ৫ হাজার ২৫৬ পয়েন্ট। ১০টা ১৩ মিনিঠে তা বেড়ে ৫ হাজার ২৫৯ পয়েন্টে উন্নীত হয়। এর পর ১০টা ৪৫ মিনিটে সূচক কমে ৫ হাজার ২৫১ পয়েন্টে দাঁড়ায়। বেলা ১১টা ২২ মিনিটে ফের সূচক ঊর্ধ্বমুখী হয়ে ৫ হাজার ২৬৪ পয়েন্টে দাঁড়ায়। ১১টা ৪৬ মিনিটে সূচক কমে ৫ হাজার ২৫২ পয়েন্টে নেমে আসে। ১২টা ২০ মিনিট ফের সূচক বেড়ে ৫ হাজার ২৫৬ পয়েন্টে উন্নীত হয়।

দিনশেষে ডিএসইর প্রধান সূচক দশমিক ৩৪ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ২৫০ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়া সূচক ৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ১৯২ পয়েন্টে। আর ডিএসই-৩০ সূচক ২ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৮৩২ পয়েন্টে। মূল্যসূচকে এই উত্থানের দিনে ডিএসইতে যে কয়টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে, কমেছে তার চেয়ে বেশি। দিনভর বাজারটিতে লেনদেনে অংশ নেওয়া ১২৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে।

বিপরীতে দাম কমেছে ১৬৪টির এবং দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৭টির। এদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩১৯ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ২৯০ কোটি ৫৪ লাখ টাকার। সে হিসেবে লেনদেন বেড়েছে ২৮ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। বাজারটিতে টাকার পরিমাণে সব চেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে প্রাইম ফাইন্যান্সের শেয়ার। কোম্পানিটির ২২ কোটি ১২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ১৪ কোটি ৪২ লাখ টাকার লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে ব্র্যাক ব্যাংক এবং ১৩ কোটি ৫৪ লাখ টাকা লেনদেনে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে রানার অটোমোবাইল।

এ ছাড়া লেনদেনের শীর্ষ ১০ কোম্পানির মধ্যে রয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন, ইন্টার্ন ক্যাবলস, মুন্নু সিরামিক, ফরচুন সুজাতা, গ্রামীণফোন, প্রাইম ইসলামি লাইফ ইন্স্যুরেন্স এবং গ্রিন পাওয়ার। অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএসসিএক্স দশমিক ৩৫ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ৭০৮ পয়েন্টে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ১৮ কোটি ২৩ লাখ টাকার। লেনদেন অংশ নেওয়া ২৪৪টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৯৬টির, কমেছে ১১২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৬টির।

advertisement