advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বান্দরবানে আ.লীগ নেতাকে অপহরণ প্রতিবাদে বিক্ষোভ

বান্দরবান প্রতিনিধি
২৪ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৪ মে ২০১৯ ০৯:১৯
advertisement

বান্দরবানে এবার সাবেক পৌর কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা চ থোয়াই মারমাকে (৫৬) অপহরণ করেছে সন্ত্রাসীরা। গত বুধবার রাত ৯টার দিকে চড়ুইপাড়ার উজিমুখপাড়া থেকে তাকে অপহরণ করা হয়। তিনি বান্দরবান পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, রাত ৯টার দিকে বালাঘাটা এলাকার চড়ুইপাড়ার উজিমুখপাড়ায় নিজের খামারবাড়ি থেকে অস্ত্রধারী কয়েক সন্ত্রাসী চ থোয়াই মারমাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

এর প্রতিবাদে শহরে তাৎক্ষণিক মিছিল বের করে আওয়ামী লীগ। পরে প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তারা বলেন, পাহাড়ের পরিবেশ অশান্ত করতে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) সন্ত্রাসীরা একের পর এক আওয়ামী লীগ নেতাকে হত্যা ও অপহরণ করছে। তারা অবিলম্বে এসব সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার এবং চ থোয়াই মারমাকে অক্ষত অবস্থায় ফেরতের দাবি জানান।

অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন। বান্দরবান পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার জানান, আওয়ামী লীগের এক নেতাকে অপহরণ করা হয়েছে। সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। উল্লেখ্য আরাকান লিবারেশন পার্টি (এএলপি) থেকে একটি বিচ্ছন্নতাবাদী দল পালিয়ে বান্দরবান জেলায় আশ্রয় নেয়।

পরবর্তীতে পার্বত্যাঞ্চলের স্থানীয়দের মদদে কিছু বিপদগামী মার্মা যুবক তাদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে মগ লিবারেশন পার্টি (এমএলপি) বা মগ বাহিনী নাম দিয়ে বান্দরবানের বিভিন্ন দুর্গম এলাকায় হত্যা ও অপহরণ ও চাঁদাবাজি চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস)। মূলত জেএসএস ও মগ বাহিনীর দ্বন্দ্বে পাহাড়ে একের পর এক হত্যা ও অপহরণের ঘটনা ঘটে চলেছে।

গত ১৫ দিনে জেএসএসের দুই নেতাকর্মীকে হত্যা ও একজনকে অপহরণের দাবি করেছে সংগঠনটি। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের এক নেতাকে হত্যা ও আরেকজনকে অপহরণের দাবি আওয়ামী লীগ নেতাদের। এ নিয়ে আতঙ্কে দিন কাটছে পাহাড়ের মানুষের। অনেকে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।