advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আ.লীগ বিএনপি জাপাসহ ১১ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল

নিজস্ব প্রতিবেদক,বগুড়া
২৪ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৪ মে ২০১৯ ০৮:৫৭
advertisement

বগুড়া-৬ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন গতকাল বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ ১১ প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তবে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্য মনোনয়ন ফরম তোলা হলেও শেষ পর্যন্ত তা জমা দেওয়া হয়নি।

মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক টি জামান নিকেতা, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক সাবেক এমপি গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ, সাবেক জেলা সভাপতি ও পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট একেএম মাহবুবর রহমান, সাবেক জেলা সভাপতি রেজাউল করিম বাদশা, জেলা জাপার সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম ওমর, জেলা কংগ্রেসের সভাপতি মনসুর রহমান, মুসলিম লীগের মুফতি মাওলানা রফিকুল ইসলাম এবং চার স্বতন্ত্র প্রার্থী মোটর শ্রমিক ইউয়িনের সাবেক নেতা সৈয়দ কবির আহমেদ মিঠু, মো. মিনহাজ উদ্দিন, জাফর আলী ও হাসান আলী। গতকাল দুপুরের দিকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী টি জামান নিকেতা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. মকবুল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান মজনু, তোফাজ্জল হোসেন দুলু, অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম মন্টু, রাগেবুল আহসান রিপু, মন্জুরুল আলম মোহন, আসাদুর রহমান দুলু, আমিনুল ইসলাম ডাবলু প্রমুখ। দুপুর ২টায় দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার জেলা সিনিয়র নির্বাচন কর্মকর্তা মাহবুব আলম শাহর কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন বিএনপির প্রার্থীরা। এ সময় দলের নেতাদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট একেএম সাইফুল ইসলাম ও ফজলুল বারী বেলাল, সাবেক এমপি হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, আলী আজগর হেনা, মীর শাহে আলম, আহসানুল তৈয়ব জাকির প্রমুখ। এর আগে বুধবার মনোনয়ন জমা দেন সদর আসনের সাবেক এমপি ও জাপার প্রার্থী নুরুল ইসলাম ওমর।

এ সময় অ্যাডভোকেট শাজাহান আলী তালুকদার, অধ্যক্ষ মোকছেদুল আলম, আব্দুস সালাম বাবু, এইচ এম ইকবাল উপস্থিত ছিলেন। বগুড়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক সাবেক সাংসদ গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ বলেন, বুধবার বেগম খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র উত্তোলনের পর তা ঢাকায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু রাতে আমরা জানতে পেরেছি যে ম্যাডাম নির্বাচনে অংশ নিতে রাজি হননি।

পরে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান তার (খালেদা জিয়া) মনোনয়নপত্র জমা দিতে নিষেধ করেন। এ জন্য পরে আর তার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়নি। নির্বাচনে আগামী ২৭ মে মনোয়নপত্র বাছাই, ৩ জুন প্রত্যাহার, ৪ জুন প্রতীক বরাদ্দ ও আগামী ২৪ জুন ভোটগ্রহণ করা হবে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শপথ না নেওয়ায় আসনটি শুণ্য ঘোষণা করা হয়।