advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘ভুল থাকতে পারে ধরিয়ে দিন’

আমাদের সময় ডেস্ক
২৪ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৪ মে ২০১৯ ০৮:৫৩
advertisement

লোকসভা নির্বাচনের বেসরকারি ফলে নিরঙ্কুশ জয়ের খবরে উচ্ছ্বাস শুরু হয়েছে বিজেপি নেতাকর্মীদের মাঝে। এর মধ্যেই গতকাল সন্ধ্যায় দিল্লির বিজেপি কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ সময় তার পাশে ছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং।

সংবাদ সম্মেলনের আগে বিপুলসংখ্যক সমর্থকের উপস্থিতিতে মোদিকে ফুল দিয়ে ও উত্তরীয় পরিয়ে জয়ের অভিনন্দন জানান অমিত শাহ। পরে মোদি সাংবাদিক ও সমর্থকদের উদ্দেশে বক্তব্য দেন।

মোদি বলেন, ‘বিরোধীদের আক্রমণ ভুলে গিয়েছি, আজ থেকে দেশ গড়ার নতুন দিন। কোটি কোটি দেশবাসী এই ফকিরের ঝুলি ভর্তি করে দিয়েছেন। বিশ্বের ইতিহাসে এটি সফলতম জয়। দেশকে এবার নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে হবে। কাজে ভুল থাকতে পারে, কিন্তু কোনো খারাপ কাজ করব না। আমি কোনো ভুল করলে ধরিয়ে দেবেন। ১২০ কোটি নাগরিককে মাথা নত করে নমস্কার জানাই। গণতন্ত্রের প্রতি ভারতবাসীর এই দায়দায়িত্ব, সারাবিশ্বকে স্বীকার করতে হবে। গণতন্ত্রের এই উৎসবে, গণতন্ত্রের জন্য যেসব মানুষ প্রাণ দিয়েছেন, যারা আহত হয়েছেন, তাদের পরিবারের প্রতি আমি সমবেদনা জানাচ্ছি। এই জয় আমাদের আগামী প্রজন্মকে প্রেরণা দেবে।’

বিশাল জয়ের জন্য মোদি বিজেপির নেতাকর্মী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ভোটের সঙ্গে যুক্ত সবাইকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘এই ভোটে কোনো প্রার্থী, কোনো নেতা লড়েননি, লড়েছেন আম জনতা। তারা আমার ভাবনাকে স্পষ্ট করে দিয়েছেন। ভারতের সংবিধান ও ঐক্যের প্রতি সমর্পিত এই জয়। আমরাই প্রথম কোনো দল, যারা পাঁচ বছর ক্ষমতায় থেকেও কোনো দুর্নীতির অভিযোগ নেই। আমি সবাইকে আশ্বস্ত করছি, সবার সঙ্গে কাঁধ মিলিয়ে আমরা কাজ করব। দেশ আমাদের অনেক কিছু দিয়েছে। ভারতের গণতন্ত্র ও সংবিধানের মর্যাদা আমরা রক্ষা করব।’

এ সময় বারবার মোদি পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির সাফল্যের কথা তুলে ধরে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বলেন, এর পর বাংলার দিকে দিকে ফুটবে পদ্মফুল। অর্থাৎ এটা স্পষ্ট হয়ে গেল যে লোকসভা পর্বের পর পশ্চিমবঙ্গে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের দিকে তীক্ষè দৃষ্টি রাখছেন বিজেপি নেতারা।

একই মঞ্চে অমিত শাহ তার বক্তব্যে বলেন, ঐতিহাসিক বিজয়ের জন্য বিজেপির পক্ষ থেকে দেশবাসীকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাই। গত পাঁচ বছরে ২৮ কোটি মানুষের জীবনযাত্রার উন্নতির জন্য কাজ করেছে সরকার। মোদিজির বিপুল জনসমর্থনের মধ্য দিয়ে তার সাফল্য মিলেছে।

advertisement