advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

প্রয়োজন সচেতনতা ও প্রতারকের শাস্তি

২৫ মে ২০১৯ ০০:০০
আপডেট: ২৫ মে ২০১৯ ০৯:১৭
advertisement

দিন দিন অনলাইনে কেনাকাটা জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। আর এ সুযোগে একটি চক্র গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণা করছে । অনলাইনে চটকদার বিজ্ঞাপন দেখে অনেক সাধারণ গ্রাহক পণ্য কিনে নানাভাবে এই প্রতারণার শিকার হচ্ছেন।

বিশেষ করে চাহিদা অনুযায়ী সঠিক পণ্য সরবরাহ না করা এবং করলেও নিম্নমানের পণ্য সরবরাহ করার ঘটনা প্রায়ই ঘটছে। এর কমই এক প্রতারক চক্রের সাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৪। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠিত কোম্পানির পেজ থেকে তাদের পণ্যের ছবি নকল করে এবং একই কোম্পানির নামে ভুয়া পেজ খুলে সেখানে বিজ্ঞাপন দিত চক্রটির সদস্যরা।

প্রকৃত দামের তুলনায় কয়েক গুণ কম দামে বিজ্ঞাপন দেখে পণ্যের প্রতি আকৃষ্ট হন ক্রেতারা। পছন্দের পণ্য অনলাইনে অর্ডারের পর ক্রেতারা প্রতারিত হয়েছেন। অনলাইনে কোনো পণ্য কেনার ক্ষেত্রে প্রথমেই যেটি দরকার, তা হচ্ছে সচেতনতা। আইনজ্ঞরা বলছেন, অনলাইনে প্রতারণার শিকার হলে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সাইট এবং কী ধরনের প্রতারণার শিকার হলেন, সেটির সুনির্দিষ্টভাবে তথ্য-প্রমাণ সংগ্রহ করতে হবে।

পরবর্তী সময়ে পণ্য কেনা বা হাতে পাওয়ার তারিখ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে সুনির্দিষ্টভাবে ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরে অভিযোগ করতে হবে। সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ চেয়েও মোকদ্দমা করা যায় আদালতে। করা যায় প্রতারণার মামলাও। কিন্তু ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরে অভিযোগ করাটা সবচেয়ে কার্যকর পদক্ষেপ।

অনেক অনলাইন প্রতিষ্ঠানও ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে থাকে। যেহেতু অনলাইন ব্যবসা একটি সম্ভাবনাময় খাত সুতরাং আইনশৃঙ্খালা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি ক্রেতাদেরও সচেতন হতে হবে। কোনো আকর্ষণীয় বা লোভনীয় বিজ্ঞাপন কিংবা অফার দেখেই হুট করে কিনতে যাওয়া ঠিক নয়। প্রথমেই প্রতিষ্ঠানের নাম-ঠিকানা এবং মালিকের নাম-ঠিকানায় অসামঞ্জস্য আছে কিনা ভালো করে পর্যবেক্ষণ করতে হবে।