advertisement
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

এবার বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে গণধর্ষণ, অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২

নোয়াখালী প্রতিনিধি
২৫ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৫ মে ২০১৯ ০১:৫১
advertisement

এবার নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার ছয়ানি ইউনিয়নে দুই সন্তানের জননী এক গহবধূকে (২৫) গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের মধ্যে দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তারা হচ্ছেন ওই গ্রামের মোস্তফার ছেলে সাইফুল ও রুদ্রপুর গ্রামের কফিল উদ্দিনের ছেলে বাবু।

গতকাল শুক্রবার সকালে পুলিশ দোয়ালিয়া গ্রামের একটি বাড়ি ঘেরাও করে তাদের গ্রেপ্তার করে। তাদের কাছ থেকে একটি এলজি ও এক রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। গত বৃহস্পতিবার রাতে ঘরে ঢুকে গ্রেপ্তারকৃত দুজনসহ তিনজন পালাক্রমে ধর্ষণ করে ওই নারীকে।

ওই নারীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) জানান, নির্যাতিতাকে গাইনি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে।

তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার উদ্দেশ্যে কিছু আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। আরও কিছু পরীক্ষা করা হবে। নির্যাতিতার পরিবার সূত্রে জানা গেছে, অভিযুক্ত হারুন, সাইফুল ও বাবুর সঙ্গে পুকুরে মাছ চাষ নিয়ে ওই নারীর স্বামীর বিরোধ চলছিল।

এর জেরে বিভিন্ন সময় আসামিরা তাদের হুমকি দিয়ে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ৬০-৭০ জন লোক তাদের বাড়ি ঘেরাও করে। তার পর হারুন, সাইফুল ও বাবু দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে ওই নারীর শাশুড়িকে মারধর করে এবং তাকে তার কক্ষে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। বাইরে থাকা লোকজন তাদের ঘর ভাঙচুর করে।

ঘটনার সময় ভিকটিমের স্বামী বাড়ি ছিলেন না। খবর পেয়ে বাড়ি এসে দ্রুত পুলিশে খবর দেন। পুলিশ রাতেই ওই নারীকে উদ্ধার করে প্রথমে থানায় নিয়ে যায় এবং গতকাল ভোরে হাসপাতালে ভর্তি করে। ধর্ষিতার পরিবার আরও অভিযোগ করে, ধর্ষণ শেষে তিন যুবক তাদের ঘর থেকে ৪০ হাজার টাকার একটি স্বর্ণের চেইন নিয়ে যায়।

বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ আলম মোল্লা বলেন, ঘটনায় ভিকটিমের স্বামী বাদী হয়ে তিনজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত ৭০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। মামলার সূত্র ধরে অভিযান চালিয়ে অস্ত্রসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অপর আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

advertisement