advertisement
Azuba
advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বিনে পয়সায় মঙ্গলযাত্রার টিকিট দিচ্ছে নাসা

জাহাঙ্গীর সুর
২৫ মে ২০১৯ ০০:০০ | আপডেট: ২৫ মে ২০১৯ ০১:৪৪
advertisement

মানুষ একদিন মঙ্গলে পৌঁছাবেই। কিন্তু এর আগে লালগ্রহটাকে বুঝে নেওয়ার ব্যাপার আছে। সেই চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এরই অংশ হিসেবে আসছে বছর সূর্যের চতুর্থ গ্রহে আরেকটি নভোযান পাঠাচ্ছে নাসা। মার্স ২০২০ রোভার নামের সেই নভোযানে ‘চড়ে’ মঙ্গলে যাওয়ার সুযোগ করে দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় এই মহাকাশ গবেষণা সংস্থা। সে জন্য কাটতে হবে টিকিট। অবশ্য তা মিলছে বিনে পয়সায়।

মঙ্গলযাত্রার টিকিট কাটতে নিবন্ধন করতে হবে নাসার এই সাইটে : mars.nasa.gov/participate/send-your-name/mars2020। নাম নিবন্ধন খুবই সহজ প্রক্রিয়া। সাইটে প্রবেশের পর নির্ধারিত জায়গায় নামের প্রথম অংশ, নামের শেষাংশ, দেশের নাম, ডাকঘর ও ইমেইল ঠিকানা দিতে হবে। এর পর ‘সেন্ড মাই নেইম টু মার্স’ (মঙ্গলে আমার নাম পাঠাও) ঘরে ক্লিক করতে হবে।

তা হলেই ‘মঙ্গলবাসী’ হয়ে যাবেন আপনি। মহাকাশ অভিযানকে আরও জনপ্রিয় করতে এবং মহাশূন্য বিষয়ে সাধারণ মানুষকে কৌতূহলী করে তুলতে নাসা এ ধরনের উদ্যোগ নিয়ে থাকে। এর আগে মঙ্গলগ্রহ বিষয়েই দুবার বিশ্বব্যাপী পৃথিবীবাসীর নাম নিবন্ধনের সুযোগ দিয়েছে সংস্থাটি। গত বছর মার্স ইনসাইট নামের নভোযানে করে দুটো মাউক্রোচিপ পাঠানো হয় মঙ্গলগ্রহে।

সেই দুটো চিপে রয়েছে ২৪ লাখ ২৯ হাজার ৮০৭ পৃথিবীবাসীর নাম। এদের মধ্যে এই লেখকসহ অন্তত ১৪ বাংলাদেশির নাম রয়েছে। সাড়ে ছয় মাস ধরে ৪৮ কোটি কিলোমিটারের বেশি পথ পাড়ি দিয়ে গত নভেম্বরে এসব নাম মঙ্গলের মাটি ছুঁয়েছে। নামগুলো এখন মঙ্গলের এলিসিয়াম প্লানিশিয়া সমতলে রয়েছে। এখনো সশরীরে মঙ্গলে যাওয়ার নভোযান প্রস্তুত নয়।

তাই যারা অন্তত নাম নিবন্ধন করে নভোযানের ভেতর মাইক্রোচিপে করে মঙ্গলে যাচ্ছেন, নাসা সেইসব মঙ্গলযাত্রীকে মার্সিয়ান বা মঙ্গলবাসী বলে অভিহিত করছে। এই লেখক যেমন ২০১৪ সালের ১০ অক্টোবর থেকে একজন ‘মার্সিয়ান’। ওই বছর মনুষ্যবিহীন ওরিয়ন নভোযানে চড়ে পৃথিবীকে দুই চক্কর দিয়েছিলাম আমরা, যারা ভার্চুয়াল মঙ্গলবাসী।

পৃথিবীতে ফিরে আসার আগে সাড়ে চার ঘণ্টায় মোট প্রায় এক লাখ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়েছিল ওরিয়ন। নাম লেখানো মঙ্গলবাসীরা যত মাইল পথ পাড়ি দেয়, টিকিটে সেই সংখ্যাটা তাদের অর্জিত পয়েন্ট হিসেবে উল্লেখ থাকে। যেমন এই লেখকের তিন অভিযানে মোট পয়েন্ট ৬১ কোটি ৪৮ লাখ ৭০ হাজার ৬৩০। মার্স রোভার ২০২০ নভোযানে চড়ে যারা মঙ্গলে যাবেন, তাদের পয়েন্ট হবে ৩১ কোটি ৩৫ লাখ ৮৬ হাজার ৬৪৯।

মানে, এত মাইল পাড়ি দিয়ে ১০৫০ কেজি ভরের রোভারটি মঙ্গলে পৌঁছাবে। অবতরণের নির্ধারিত দিন ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১। নামবে ‘ইয়েজেরো’ নামে মঙ্গলের এক গিরিখাতে।

এর আগে ২০২০ সালের জুলাইয়ে এটি যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরাল বিমান ঘাঁটি থেকে উড়ে যাবে প্রায় ১০ ফুট লম্বা রোভারটি। এ পর্যন্ত ৪৪টি রোবটিক অভিযান চালানো হয়েছে মঙ্গলে। ফলে বোঝাই যাচ্ছে, বৈজ্ঞানিক গবেষণার জন্য একটা বিস্ময়জগৎ সূর্যের চতুর্থ গ্রহটা।

advertisement